অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় জামিন হয়নি কাজী কামালের

বুধবার, ২৩ মে, ২০১৮ ১০:৫১:০৩ পূর্বাহ্ণ
0
105
নিজস্ব প্রতিবেদক

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় ১০ বছরের দণ্ডপ্রাপ্ত মাগুরার সাবেক এমপি কাজী সালিমুল হক কামাল ওরফে কাজী কামালের জামিন আবেদন ৩১ জুলাই পর্যন্ত মুলতবি (স্ট্যান্ডওভার) রেখেছেন হাইকোর্ট। বুধবার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সহিদুল করিমের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে কাজী কামালের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার রফিক-উল হক, সঙ্গে ছিলেন আইনজীবী শাহ মঞ্জুরুল হক। দুদকের পক্ষে শুনানি করেন খুরশীদ আলম খান। পরে দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান জানান, আদালত তার আবেদন স্ট্যান্ডওভার রেখেছেন ৩১ জুলাই পর্যন্ত। তার অর্থ তিনি জামিন পাননি। কারণ ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে এ মামলার আপিল নিষ্পত্তি করতে সময় বেধে দিয়েছেন আপিল বিভাগ।

এ মামলায় বিচারিক আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে খালেদা জিয়াসহ ছয়জনের মধ্যে কারাবন্দি তিনজনেরই আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করেছেন হাইকোর্ট। বাকি তিন আসামি পলাতক রয়েছেন। আদালত এই তিন আসামির আপিল শুনানি এবং খালেদা জিয়ার সাজা বৃদ্ধির আবেদনসহ সবকটি আবেদন এক সঙ্গে শুনানি হবে।

এর আগে গত ৭ মার্চ মাগুরার সাবেক এমপি কাজী সালিমুল হক কামাল ও ১০ মার্চ শরফুদ্দিনের করা আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করেন হাইকোর্ট।

এ মামলায় পলাতক তিনজন হলেন, বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান, সাবেক মুখ্য সচিব ড. কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান।

চলতি বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়াকে ৫ বছর কারাদণ্ড দেন বকশীবাজারে কারা অধিদফতরের প্যারেড গ্রাউন্ডে স্থাপিত ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৫ এর বিচারক ড. মো. আখতারুজ্জামান। বাকীদের ১০ বছর করে কারাদণ্ড দেন আদালত।

প্রসঙ্গত, জিকিউ গ্রুপের মালিক শিল্পপতি কাজী সলিমুল হক কামাল ১৯৯৪ সালে বিএনপির মনোনয়নে মাগুরা-২ আসনের বহুল আলোচিত উপনির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে ২০০১ সালের নির্বাচনে একই আসন থেকে সাংসদ হন। ওই বছর তিনি মাগুরা জেলা বিএনপির সভাপতি হন।

২০০১ সালের নির্বাচনের আগে কাজী সালিমুলের রাজধানীর বাসায় বসে আওয়ামী লীগকে হারানোর ষড়যন্ত্র হয়েছিল বলে সেসময় আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছিল।

১৯৯৪ সালে মাগুরা-২ আসনের উপনির্বাচনে কাজী সালিমুল হক কামালকে নির্বাচিত করাতে ক্ষমতাসীন বিএনপির বিরুদ্ধে কারচুপির অভিযোগ তুলে তৎকালীন বিরোধী দলের ব্যাপক আন্দোলনের ফলে পরবর্তীতে দেশে তত্ত্বাবধায়ক সরকার পদ্ধতি আসে।

২০০১ সালে বিএনপি সরকারের সময়ে দলের প্রভাবশালী এই নেতা ওয়ান ইলেভেনের সময় জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার আসামি হয়ে আবার আলোচনায় আসেন। ওই মামলায় দলীয় প্রধান খালেদা জিয়াও আসামি রয়েছেন।