প্রচ্ছদ

গাবতলী পশুরহাট পরিদর্শনে ঢাকা উত্তরের প্যানেল মেয়র

২৩ মে ২০১৮, ১৩:৪৫

যুগের কন্ঠ ২৪ ডট কম

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক:

 গাবতলী পশুরহাট পরিদর্শন করেছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ঢাউসিক) প্যানেলভুক্ত মেয়র মো. জামাল মোস্তফা। মাংসের মূল্য স্থিতিশীল রাখার উদ্দেশে পশুরহাটের ইজারাদার যেন অতিরিক্ত হাসিল আদায় করতে না পারে, তা মনিটরিং করার জন্য গত সোমবার তিনি এ হাট পরিদর্শন করেন। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন ঢাউসিকের প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা মো. আমিনুল ইসলাম, গাবতলী পশুরহাটের ইজারাদার লুত্ফর রহমানের পক্ষে তার ছেলে রাকিব ও গরু ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মজিবুর রহমান।

বর্তমানে ঢাউসিকের আওতাধীন এলাকায় মোট ৩১৫ জন তালিকাভুক্ত মাংস ব্যবসায়ী রয়েছেন। প্যানেল মেয়রের পরিদর্শনের সময় ইজারাদার ও গরু ব্যবসায়ী সমিতির পক্ষ থেকে মাংস ব্যবসায়ীদের সর্বাত্মক সহযোগিতা করা হবে বলে আশ্বস্ত করা হয়। প্যানেল মেয়র মো. জামাল মোস্তফা জানান, বৃহত্তর মিরপুর ও পল্লবী এলাকায় মাংসের দাম স্থিতিশীল রাখার জন্য তিনি নিজে তদারকি করবেন।

উল্লেখ্য, বর্তমানে যে কোনো আকৃতির প্রতিটি মহিষ, গরু ও ভেড়া বা ছাগলের হাসিল যথাক্রমে ১৫০, ১০০ ও ৫০ টাকা। মাংস ব্যবসায়ী ব্যতীত অন্যদের ক্ষেত্রে হাসিলের পরিমাণ পশুর বিক্রয়মূল্যের শতকরা সাড়ে ৩ ভাগ। গত ১৪ মে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে মেয়রের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রতি কেজি দেশী গরুর মাংসের দাম ৪৫০ ও বিদেশী ৪২০ টাকা; মহিষের মাংস ৪২০ টাকা; খাসির মাংস ৭২০ টাকা ও ভেড়া বা বকরীর দাম ৬০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়। এ দাম ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। —বিজ্ঞপ্তি

Shares