সোমবার, ২৮ মে, ২০১৮ ১০:৩৩:৩৭ পূর্বাহ্ণ
0
155
রাঙামাটি প্রতিনিধি

রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলার সাজেক ইউনিয়নের বাঘাইহাটের গঙ্গারাম মুখ এলাকার দক্ষিণ করল্যাছড়ি গ্রামে প্রতিপক্ষের গুলিতে ইউপিডিএফ’র (ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট) ৩ জন নিহত হয়ছে। আহত হয়েছে ১ জন।  সোমবার সকাল সাড়ে ৭ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। রাঙামাটি পুলিশ সুপার আলমগীর কবির ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেছেন, নিহতদের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। লাশগুলো ময়নাতদন্তের জন্য খাগড়াছড়িতে নেওয়া হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রগুলো জানায়, রোববার রাতে রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলার সাজেক ইউনিয়নের বাঘাইহাটের দক্ষিণ করল্যাছড়ি গ্রামে একটি বাড়িতে রাত যাপন করছিল ইউপিডিএফের কয়েকজন কর্মী। এ খবর পেয়ে প্রতিপক্ষের ১০/১২ জনের একটি স্বশস্ত্র দল রাতভর সম্ভাব্য বাড়ি ঘেরা করে ওঁৎ পেতে থাকে। সকালে ইউপিডিএফ কর্মীরা ঘুম থেকে উঠে ঘর থেকে বের হলে আগে থেকে ওঁৎপেতে থাকা অস্ত্রধারীরা তাদের লক্ষ্য করে  ব্রাশফায়ার করে।  এতে ঘটনাস্থলে নিহত হয় ইউপিডিএফের সদস্য স্মৃতি চাকমা (৫০), অতল চাকমা (৩০) এবং ইউপিডিএফ সহযোগী সংগঠন গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের বাঘাইছড়ি উপজেলা শাখার সদস্য সঞ্জীব চাকমা (৩০)। এছাড়া আহত হয় কানন চাকমা নামে এক ইউপিডিএফ সদস্য। এরপর সন্ত্রাসীরা ফাঁকা গুলি করতে করতে ঘটনাস্থল থেকে চলে যায়।

এই ঘটনার জন্য জেএসএস সংস্কারবাদী দলকে দায়ী করে একটি বিবৃতি দিয়েছে ইউপিডিএফ। এ ঘটনার জন্য ইউপিডিএফ প্রতিপ্রক্ষ সংস্কার হিসেবে পরিচিত জেএসএস এমএন লারমা দলকে দায়ী করে একটি বিবৃতি দিয়েছে। দলটির তথ্য প্রচার বিভাগের নিরণ চাকমার পাঠানো বিবৃতিতে বলা হয়, এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় নিরাপত্তা বাহিনীর যোগসাজশ আছে অভিযোগ করে বলা হয় রবিবার রাতে নিরাপত্তা বাহিনীর পাহারায় একটি মাইক্রোবাসযোগে সংস্কারবাদী জেএসএস-এর ১০-১২ জনের একটি সশস্ত্র সন্ত্রাসী দলকে গঙ্গারাম করল্যাছড়ি এলাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। সোমবার সকাল ৭টার দিকে ওঁৎ পেতে থাকা উক্ত সন্ত্রাসী দলটি সেখানে একটি বাড়িতে অবসস্থানরত ইউপিডিএফ সদস্যদের ওপর অতর্কিতে ব্রাশ ফায়ার করে। এতে ঘটনাসস্থলেই স্মৃতি চাকমা, অতল চাকমা ও সঞ্জীব চাকমা নিহত হন।

অভিযোগ অস্বীকার করে জেএসএস এমএন লারমা দলের সহ তথ্য প্রচার সম্পাদক প্রশান্ত চাকমা বলেন, এ ঘটনায় ইউপিডিএফের আভ্যন্তরীণ কোন্দলে হয়েছে। এ ঘটনার সাথে তাদের দলের সম্পৃক্ত নেই।

এ ঘটনার পর সাজেক এলাকায় মানুষের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। তবে এখন পর্যন্ত পুলিশ কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। থানায় কোন মামলাও হয়নি।