তিন ঘণ্টার বৃষ্টিতে নাকাল রাজধানীবাসী

বৃহস্পতিবার, ৩১ মে, ২০১৮ ৭:৫৬:৪৯ পূর্বাহ্ণ
0
91

নিজস্ব প্রতিবেদক

টানা কয়েকদিনের কাঠফাটা গরমের পর বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বজ্রসহ বৃষ্টিপাত হয়েছে। সকাল ৬টা থেকে ৯টা পর্যন্ত মাত্র তিন ঘণ্টায় কেবল রাজধানীতেই ৮১ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।
এর আগে গত ২৩ মে দেড় ঘণ্টায় রাজধানীতে ৪৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয় বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর সূত্র।
এদিকে রোজার দিনে সকালের বৃষ্টিতে কয়েকদিনের অসহনীয় গরম থেকে স্বস্তি মিললেও বৃষ্টি শেষে যথারীতি পড়তে হয়েছে ভোগান্তিতে। রাস্তাঘাটে পানি জমে জমে যাওয়ায় শিক্ষার্থী ও কর্মজীবী মানুষকে পোহাতে হয় চরম ভোগান্তি।
গত কয়েকদিনের অসহ্য গরমে হাঁপিয়ে উঠেছিল রাজধানীবাসী। গতকাল বুধবার ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৬ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
বৃহস্পতিবার সকালে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মিরপুর, শ্যামলী, পল্লবী, আগারগাঁও, মোহাম্মদপুর, কাজীপাড়া এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে সড়কজুড়ে বৃষ্টির পানির ঢেউ। গাড়ির ইঞ্জিনে পানি ঢুকে পড়ায় বেশ কয়েকটি যানবাহন বিকল হয়ে সড়কে আটকে আছে। সড়কের কোথাও কোথাও রয়েছে তীব্র যানজট। পানির মধ্য দিয়ে পথচারীরা হেঁটে চলাচল করছেন।
অপরদিকে, দারুস সালাম, ক্যান্টনমেন্ট, কালশি, উত্তরা ও বিমানবন্দর এলাকা এবং দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ধানমন্ডি-২৭, হাজারীবাগ, শংকর, জিগাতলা, রায়েরবাজার ও পুরান ঢাকার নাজিম উদ্দিন রোডসসহ বেশ কিছু স্থানে জলাবদ্ধতার খবর পাওয়া গেছে। এসব এলাকায় যারা ঘর ছেড়ে কাজে বাইরে বের হয়েছেন, তাদের সীমাহীন বিড়ম্বনায় পড়তে হয়েছে।
বৃষ্টিতে জনদুর্ভোগের বিষয়ে কথা বলা হলে জানতে চাইলে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) অতিরিক্ত প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা খন্দকার মিল্লাতুল ইসলাম জানান, বৃষ্টিতে সৃষ্ট জলাবদ্ধতায় কাজ করার জন্য সিটি কর্পোরেশনের অঞ্চলভিত্তিক কাউন্সিলর ও আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তাদের নেতৃত্বে ইমার্জেন্সি রেসপন্স টিম গঠন করা আছে। তারা সড়কের বিভিন্ন ম্যানহোল ও ড্রেন উন্মুক্ত করে দিয়ে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করে দিচ্ছে। ডিএসসিসি এলাকায় জলাবদ্ধতা তেমন একটা নেই।
আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায় এবং রংপুর, রাজশাহী, ঢাকা, ময়মনসিংহ, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ী দমকা হাওয়া ও বিদ্যুৎ চমকানোসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী থেকে ভারী বর্ষণ হতে পারে।
আবহাওয়া অধিদপ্তর আরও জানায়, পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগর ও উত্তর-পূর্ব বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত লঘুচাপটি ঘনীভূত হয়ে উত্তর-পূর্ব বঙ্গোপসাগর ও পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগর এলাকায় নিম্নচাপ এবং পরে গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়ে মিয়ানমারের রাখাইন উপকূল অতিক্রম করেছে। বর্তমানে এটি স্থল নিম্নচাপ আকারে মিয়ানমারের মধ্যাঞ্চলে অবস্থান করছে। এটি উত্তর-পূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে ক্রমান্বয়ে দুর্বল হয়ে যেতে পারে। লঘুচাপের বর্ধিতাংশ বাংলাদেশের পশ্চিমাঞ্চল পর্যন্ত বিরাজ করছে।
আরও পড়ুন-