বড় অভিযানে দুয়েকটা ভুল হতেই পারে: ওবায়দুল কাদের

শনিবার, ২ জুন, ২০১৮ ১১:০৭:২৪ পূর্বাহ্ণ
0
71

নিজস্ব প্রতিবেদক

কক্সবাজারের টেকনাফে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ স্থানীয় কাউন্সিলর ও যুবলীগ নেতা একরামুল হকের নিহত হওয়ার ঘটনার প্রসঙ্গে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘এত বড় অভিযানে দুয়েকটা ভুল হতেই পারে। তারপরও পুরো ঘটনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এ ঘটনায় যদি কেউ জড়িত থাকে, তার যথোপযুক্ত বিচার হবে।’

শনিবার সকা‌লে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে নারীদের জন্য ‘দোলনচাপাঁ’ বাস উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে সেতুমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

মাদকবিরোধী অভিযানে একরামের নিহত হওয়ার ঘটনা চলমান অভিযানকে প্রশ্নবিদ্ধ করে কিনা— সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে ক্ষমতাসীন দলের এই সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘খতিয়ে দেখার আগে বলা যাবে না এ ঘটনায় নিরীহ কেউ শিকার হলো কিনা। তদন্তের পর মূল ঘটনা বেরিয়ে আসবে। তদন্তের আগে কিছুই বলা যাচ্ছে না।’

ওবায়দুল কা‌দের ব‌লেন, ‘প্রধানমন্ত্রী নিজেই বলেছেন, এ অভিযানে যদি কোনো নিরীহ মানুষ হয়রানির শিকার হয়, তাহলে অবশ্যই তা তদন্ত করা হবে। এর সঙ্গে যারা জড়িত তাদের রেহাই দেওয়া হবে— তা মনে করার কোনো কারণ নেই। আমি নিজেও বলেছি নিরীহ কারো বিরুদ্ধে কিছু করা যাবে না।’

একরামুল হ‌কের নিহত হওয়ার দিনের অডিও রেকর্ড প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ক্ষমতাসীন দলের এই সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘অডিওটি খ‌তি‌য়ে দেখা হ‌চ্ছে। য‌দি সে নিরাপরাধ হয়, তাহ‌লে দোষী‌দের আইনের আওতায় এনে বিচার করা হ‌বে। এছাড়া তথ্য-প্রমাণ ছারা একরামুল যে নির্দোষ, সেটাও বল‌তে পারছি না। তবে অপরাধী কাউকেই সরকার ছাড় দেবে না।’

তিনি আরো বলেন, ‘একরাম আমাদের পার্টির একজন কর্মী। এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বক্তব্য দিয়েছেন। এরপর আমার মনে হয় আর কিছু বলা উচিত নয়।’

একরামুল যুবলী‌গ নেতা হওয়ার পরও ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হওয়ার ঘটনায় আওয়ামী লী‌গের অভ্যান্তরীণ কোনো ধরনের কোন্দল কাজ করতে পারে কিনা— সাংবাদিকদের এ প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের ব‌লেন, ‘এখানে অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কোনো আলামত আমরা পাইনি। এ ঘটনায় সে ভিকটিম হয়ে গেল কিনা— তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। যদি কোনো নিরীহ ব্যক্তি হামলার শিকার হয়, তাতে সরকার কোনো ছাড় দেবে না।’

সেতুমন্ত্রী আরো বলেন, ‘এটি বড় ধরনের একটি অভিযান, যা দেশের সব মানুষের প্রশংসা কুড়িয়েছে। তবে একটি মহল এর বিরোধিতা করছে স্রেফ রাজনৈতিক কারণে। বিরোধিতার খাতিরে বিরোধিতা হচ্ছে। সরকারের প্রতিপক্ষরা বিরোধিতা করছে। কিন্তু যাদের জন্য অভিযান, সেই সাধারণ মানুষ খুবই খুশি।’

মাদকের ভয়াবহতা তুলে ধরে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সুনামির মতো মাদক দেশে ছড়িয়ে পড়ছে। সেই অবস্থায় কেবল ক্যাম্পেইন করে মাদকের স্রোত থামানো যাচ্ছে না। আমাদের তরুণ সমাজ মাদকের জন্য ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। এটা নিয়ে আমরা কি কিছুই বলব না?’

মাদকবিরোধী অভিযানের সমালোচনাকারীদের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘আজকে যারা সমালোচনা করে এ অভিযানকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চান, তারা কিন্তু মাদক নিয়ে একটি কথাও বলেননি। কিন্তু এটা কেমন রাজনীতি যে শুধু প্রতিপক্ষকে গালিগালাজ করতে হবে, প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ ছড়াতে হবে? অথচ সমাজে যে বিদ্বেষ ছড়িয়ে পডছে, বাতাস-পানি দূষিত হচ্ছে, এর বিরুদ্ধে তারা কথা বলে না।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়া এ দেশে আর কেউ মাদকবিরোধী অভিযান কিংবা মাদকের বিরুদ্ধে সামাজিক জনমত গড়ে তোলার কথা ব‌লেনি।’

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান র‌্যাংগস গ্রুপের উদ্যোগে রাজধানীতে যাত্রা শুরু করছে ‘দোলনচাঁপা’ বাস সার্ভিস। বাসটি রাজধানীর মিরপুর-১২ নম্বর থেকে ফার্মগেট, শাহবাগ, গুলিস্তান হয়ে মতিঝিল যাবে।

অনুষ্ঠানে র‌্যাংগস গ্রুপের চেয়ারম্যান আবদুর রউফ চৌধুরী, ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার এনায়েত উল্লাহ, র‌্যাংগস মোটরের ম্যানেজিং ডিরেক্টর সোহান রউফ চৌধুরীসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।