প্রচ্ছদ

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে ঈদকে সামনে রেখে যানজটের আশঙ্কা

০৪ জুন ২০১৮, ১২:১৪

যুগের কন্ঠ ২৪ ডট কম

শাহ্ সৈকত মুন্না (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধিঃ

ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু সংযোগ মহাসড়ক দিয়ে প্রতিদিন উত্তরবঙ্গসহ ২৬টি জেলার হাজারো যানবাহন চলাচল করে। বেশ কয়েক বছর ধরে ঈদের আগে-পরে এই মহাসড়কে ভোগান্তি একরকম নিত্যচিত্র হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই ঈদ মৌসুমে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক হয়ে ওঠে এক দুশ্চিন্তার নাম।

ঢাকা-উত্তরবঙ্গ দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম এই মহাসড়কে ঈদের আগে চারলেন মহাসড়ক খুলে দেওয়ার কথা থাকলেও এর কাজ সম্পন্ন হতে আরো সময় লাগবে। তাই বরাবরের মতো এবারের যাত্রায়ও ভোগান্তি বা তীব্র যানজটের আশঙ্কা করছেন এ পথের যানবাহনের চালক ও যাত্রীরা।

এদিকে মির্জাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইসরাত সাদমীন জানান, ইতিমধ্যে সহকারী কমিশনার (ভূমি) মির্জাপুরকে মোবাইল কোর্ট পরিচালনার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে এবং উপজেলা প্রশাসন এর পক্ষ থেকে ঈদে ঘরমুখো যাত্রাকে নির্বিঘœ রাখতে সার্বিক নিরাপত্তা এবং সব সরনের সুবিধা দেয়া হবে।
রাজধানীর সঙ্গে উত্তরবঙ্গের যাতায়াত সহজ করতে মহাসড়কটি চার লেনে উন্নীত করার কাজ চলছে কয়েক বছর ধরে। সঠিক ব্যবস্থাপনা না থাকলে এবারও ঈদে নির্বিঘেœ বাড়ি যাওয়া ও কর্মস্থলে ফেরা সম্ভব হবে না বলে আশঙ্কা এই পথের যাত্রী ও চালকদের।

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের চারলেনের উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ চলমান থাকায় টাঙ্গাইলের জামুর্কী, পাকুল্লা, মির্জাপুর, দেওহাটা ও হাঁটুভাঙ্গাসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় যানজটের সৃষ্টি হয়। নির্মাণকাজ চলার সময় ভাড়িবর্ষণের ফলে মহাসড়কে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হচ্ছে। এসব কারণে এ মহাসড়কে যানবাহন চলাচলে এমনিতেই ধীরগতি।
এদিকে ঘরমুখো মানুষের ঈদযাত্রা নিরাপদ ও ভোগান্তিমুক্ত করতে মহাসড়ক সংস্কারসহ যানজট নিরসনে পদক্ষেপ নেয়ার কথা জানিয়েছে সড়ক বিভাগ ও পুলিশ প্রশাসন।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, প্রতিবছর ঈদ সামনে রেখে একশ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী সড়কে ফিটনেসবিহীন গাড়ি বের করে। এসব গাড়ি প্রায়ই মহাসড়কে বিকল হয়ে যায়। এতে উভয় পাশের গাড়ি আটকে পড়ে। এ থেকেই তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। অনেক সময় চালকের অদক্ষতা, সড়ক দুর্ঘটনা এবং গাড়ির সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় যানজট হয়।
টাঙ্গাইল সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আমিনুল এহসান বলেন, মানুষ যাতে স্বস্তিতে ঘরে ফিরতে পারে এবং স্বজনদের সঙ্গে ঈদ করতে পারে, সেজন্য ৮ জুনের মধ্যে চার লেন খুলে দেয়া হবে।’

এ ব্যাপারে মির্জাপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এ কে এম মিজানুল হক বলেন, যানজটের কথা মাথায় রেখে গত বছরগুলোর চেয়ে এবার মহাসড়কে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যসংখ্যা অনেক বাড়ানো হয়েছে। এছাড়াও মোটরসাইকেল করে পুলিশ বিভিন্ন পয়েন্টে মোবাইল টিম হিসেবে কাজ করছে।

Shares