নৌকার বার্তা নিয়ে বাড়ি বাড়ি যাচ্ছে ছাত্রলীগ

বুধবার, ৬ জুন, ২০১৮ ১১:২২:৩১ পূর্বাহ্ণ
0
72
অনলাইন ডেস্ক

সামনে ভোট। বসে নেই আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। নানাভাবে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন তারা। সহযোগী সংগঠন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরাও কাজ করছেন নিরলস। রাজশাহী সিটি করপোরেশনের (রাসিক) এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের বিজয় নিশ্চিত করতে নৌকা প্রতীকের বার্তা নিয়ে বাড়ি বাড়ি যাচ্ছে ছাত্রলীগ।

আর এতে নেতৃত্ব দিচ্ছেন সাবেক মেয়র খায়রুজ্জামান লিটনের মেয়ে আনিকা ফারিহা জামান অর্ণা। তিনি ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি। সদ্য এমবিবিএস পাস করা অর্ণা পেশায় মনোযোগী না হয়ে মন দিয়েছেন রাজনীতিতে। তিনি

বলছেন, সবটুকুই রাজশাহীর মানুষের স্বার্থে। রাজশাহীর উন্নয়নের জন্য সিটি মেয়র হিসেবে তার বাবাকে খুব প্রয়োজন। তাই অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন তারা। ২৯ মে রাজশাহীসহ তিন সিটি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। এ তফসিল কার্যকর হবে ১৩ জুন। ২৪ জুন মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন এবং প্রত্যাহারের শেষ দিন ৯ জুলাই। কয়েক মাস আগে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও রাজশাহী মহানগর সভাপতি খায়রুজ্জামান লিটনকে দলের প্রার্থী ঘোষণা করা হয়। ২২ ফেব্রুয়ারি রাজশাহীতে এক জনসভা থেকে দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা লিটনকে নির্বাচিত করার আহ্বান জানান।

এরপর থেকেই নির্বাচনের প্রস্তুতি নিয়ে ভোটের মাঠে নেমে পড়েন আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা। ছাত্রলীগ তাদের পাশে থাকলেও তফসিল ঘোষণার পর আরও সক্রিয় হয়ে উঠেছেন সহযোগী এ সংগঠনটির নেতাকর্মীরা। নৌকার পক্ষে তারা নগরীতে পোস্টার, ব্যানার ও ফেস্টুন লাগানোর কাজ করে যাচ্ছেন। প্রতিদিন দুটি করে ওয়ার্ডের বাড়ি বাড়ি গিয়ে লিফলেট বিতরণ করছেন তারা। তুলে ধরছেন আওয়ামী লীগ সরকারের নানা উন্নয়নের চিত্র। আর তাদের নেতৃত্ব দিচ্ছেন অর্ণা জামান। তিনিও বাড়ি বাড়ি গিয়ে নৌকা প্রতীকে ভোট দেওয়ার জন্য সবার প্রতি অনুরোধ জানাচ্ছেন। ভোটাররাও লিটনকে মেয়র বানানোর প্রত্যয় ব্যক্ত করছেন। এমন প্রচারণায় তরুণ প্রজন্মের মধ্যে সাড়া ফেলেছেন ছাত্রলীগ নেতারা। আর এ ভোটে তরুণ ভোটারদের মতামত প্রার্থীকে নির্বাচিত করার ক্ষেত্রে খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে মনে করছেন ছাত্রলীগ নেতারা। মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি রকি কুমার ঘোষ বলেন, প্রচারণা চালাতে গিয়ে আমরা দেখেছি, মানুষ এখন লিটনের অভাব বুঝতে পেরেছেন। তারা আগের ভুল আর করতে চান না। ভোটারদের এমন মনোভাব দেখে আমরাও উজ্জ্বীবিত। প্রতিদিন দুইটি করে ওয়ার্ডে গণসংযোগ করছি, লিফলেট বিতরণ করছি। রাত জেগে নগরজুড়ে পোস্টার লাগাচ্ছি। ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতা অর্ণা জামানের নেতৃত্বেই এসব হচ্ছে।

জানতে চাইলে অর্ণা জামান বলেন, তার বাবা খায়রুজ্জামান লিটন রাজশাহীর মানুষের জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন নিয়ে ভাবেন। এ অঞ্চলের উন্নয়নে তার মহাপরিকল্পনা রয়েছে। তিনি মেয়র থাকাকালে একটি আধুনিক ও দৃষ্টিনন্দন শহর গড়ে তোলেন। কিন্তু ৫ বছরে সে অগ্রগতি থেকে রাজশাহী পিছিয়ে পড়েছে। তাই মেয়র হিসেবে তার বাবাকেই দরকার। এজন্য ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে তিনি নির্বাচনের মাঠে নেমেছেন।