যে কারণে কোচের দৌড়ে এগিয়ে স্টিভ রোডস

বুধবার, ৬ জুন, ২০১৮ ১১:৩৫:৫৬ পূর্বাহ্ণ
0
84

জাতীয় দলের হেড কোচের পদ থেকে চন্দিকা হাথুরুসিংহের পদত্যাগের পর নতুন কোচ নিয়োগ দিতে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) ভাবনায় ছিল পরবর্তী বিশ্বকাপ। এজন্য দুটি বিষয় প্রাধান্য দিয়ে কোচ খুঁজছিলেন বিসিবির নীতিনির্ধারকরা। প্রথমত, যিনি কোচের দায়িত্ব নেবেন তাকে অবশ্যই অভিজ্ঞ হতে হবে। দ্বিতীয়ত, ২০১৯ বিশ্বকাপ পর্যন্ত তাকে বাংলাদেশ দলের সঙ্গে নিরবচ্ছিন্ন কাজ করে যেতে হবে। প্রায় ৮ মাস খোঁজাখুঁজির পর প্রত্যাশিত সেই কোচের সন্ধান পেয়েছে বিসিবি। ইংলিশ বংশোদ্ভূত ৫৩ বছর বয়সি স্টিভ রোডসই টাইগারদের পরবর্তী কোচ হওয়ার দৌড়ে সবচেয়ে এগিয়ে।

২০১৯ বিশ্বকাপ ইংল্যান্ডের মাটিতে। যে কারণে টাইগারদের হেড কোচ করার ক্ষেত্রে রোডসকেই মনে ধরেছে বোর্ডের। এ ব্যাপারে বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন গতকাল সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, ‘স্টিভ রোডস আমাদের সংক্ষিপ্ত তালিকায় আছেন। আশা করছি আগামী দুই থেকে তিন দিনের মধ্যে বোর্ডের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। আপনারা অতীতে দেখেছেন রিচার্ড পাইবাস ও ফিল সিমন্স এসেছিলেন। এরই ধারাবাহিকতায় রোডস এসেও নিয়োগ প্রক্রিয়ার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট যারা আছেন তাদের সঙ্গে দেখা করে ওনার উপস্থাপনা দেবেন।’

বিসিবির প্রধান নির্বাহী যোগ করেন, ‘(কোচ নির্বাচনে) আমরা অভিজ্ঞতাকে প্রাধান্য দিয়েছি। প্রাথমিকভাবে আমরা বেশ কয়েকজন কোচের সঙ্গে কথা বলেছি বিগ নেম ও অভিজ্ঞতা দুটোই ছিল। কিন্তু বিভিন্ন কারণে হয়তো উনারা সহজলভ্য ছিলেন না বা পারিবারিক কারণে হয়তো উনারা আসতে পারেননি। এ মুহূর্তে যে কয়জন কোচ পাওয়া গেছে, তার মধ্যে অভিজ্ঞদের একজন সে। মূলত তারা অভিজ্ঞতাকে গুরুত্ব দিচ্ছি।’

জানা গেছে, বিসিবির সংক্ষিপ্ত তালিকায় আছেন অস্ট্রেলিয়ান ও দক্ষিণ আফ্রিকান কোচের নামও। তবে রোডসের ব্যাপারে বিসিবির আগ্রহের কারণ আগামী বিশ্বকাপ। যেহেতু আসন্ন বিশ্বকাপটি ইংল্যান্ড ও ওয়েলসে অনুষ্ঠিত হবে, সেহেতু এ ইংলিশকেই প্রাধান্য দেওয়া হচ্ছে। ব্যাপারটি খোলাসা করেই বললেন বিসিবির প্রধান নির্বাহী সুজন, ‘আগামী বিশ্বকাপ ইংল্যান্ডে, তাকে নিয়ে ভাবনার ব্যাপারে এটাও বিবেচ্য বিষয়। ইংল্যান্ডের কন্ডিশন বা ওই ধরনের কন্ডিশনের কাউকে যদি দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত করা যায়, তাহলে বাড়তি সুবিধা পাওয়া যেতে পারে।’

বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন আগেই জানিয়েছিলেন পরবর্তী হেড কোচ হিসেবে বড় কোনো নাম আসছে না। রোডস ইংল্যান্ডের হয়ে ১১ টেস্ট এবং ৯টি ওয়ানডে খেলে ছিটকে পড়ায় ক্যারিয়ার গড়েছেন কোচিংয়ে। ইয়র্কশায়ারে জন্ম নেওয়া রোডস প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলেছেন ৪৪০টি। লিস্ট ‘এ’ ম্যাচ ৪৭৭টি। খেলোয়াড়ি জীবনে ছিলেন উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান।

রোডস ২০০৬ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত উস্টারশায়ারের কোচ ও টিম ডিরেক্টর ছিলেন। ১১ বছর কাজ করার পর গেল বছর ক্লাবের জনৈক ক্রিকেটারের এক অপ্রীতিকর ঘটনার জের ধরে চাকরিচ্যুত হন। ২০১০ সালে সাকিব আল হাসান উস্টারশায়ারের হয়ে খেলার সময় রোডস ছিলেন দলটির ডিরেক্টর অব ক্রিকেট। সুজন জানিয়েছেন এ ইংলিশ কোচকে প্রস্তাব দেওয়ার আগে কোচ নিয়োগ সংক্রান্ত পরামর্শক গ্যারি কারস্টেনের সঙ্গে কথা বলেছে বিসিবি। সবদিক থেকেই রোডসের ব্যাপারে ইতিবাচক বিসিবি। সব ঠিকঠাক থাকলে তিনিই হয়তো হতে যাচ্ছেন টাইগার দলে চন্দিকা হাথুরুসিংহের উত্তরসূরি।