ঈদের আগে ঝরঝরে সিল্কি চুল!

বৃহস্পতিবার, ১৪ জুন, ২০১৮ ৯:৫৪:১১ পূর্বাহ্ণ
0
134
অনলাইন ডেস্ক

সেই প্রাচীনকাল থেকেই মেথি আমাদের নানা কাজে ও রূপচর্চায় ব্যবহার হয়ে আসছে। শুধু তাই নয় মেথির রয়েছে নানা ঔষধি গুণ। যা আমাদের চুলের বহু সমস্যার সমাধান দিতে পারে। তবে সব সময় এক পদ্ধতিতে নয়, বরং কয়েকটি পদ্ধতি ব্যবহার করে মেথি চুলে দেয়া যায়।

প্রয়োজনীয় উপাদান
মেথি দানা (২ টেবিল চামচ বা তার সমপরিমাণ)
টক দই (এক কাপ বা তার সমপরিমাণ)
নারিকেল তেল/ আমন্ড অয়েল/ অলিভ অয়েল

প্রণালী
প্রথমে ১/৪ কাপ মেথি দানা (অথবা ২ টেবিল চামচ) পানি দিয়ে ধুয়ে সারারাত ভিজিয়ে রাখুন।

ভিজিয়ে রাখা মেথি পাটায় নিয়ে খুব ভালভাবে মিহি করে পেস্ট করে নিন। চাইলে ব্লেন্ডার ব্যবহার করতে পারেন।

পেস্ট করা মেথিতে এক কাপ টক দই নিয়ে খুব ভালো ভাবে মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি কম পক্ষে ২ থেকে ৩ ঘণ্টা রেখে দিন।

চুলে তেল ম্যাসাজ করুন। এক্ষেত্রে নারিকেল তেল বা আপনার পছন্দনুযায়ী যে কোনো তেল নিতে পারেন। চুলে তেল দেয়ার আগে, তেলটা সামান্য গরম করে নিতে পারেন।

আপনি চাইলে তেল ম্যাসাজ নাও করতে পারেন। তবে যাদের চুল অধিক শুষ্ক এবং চুলে গিট লেগে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে, তার চুলে তেল দিয়ে নিন।

এবার চুলে মেথি আর টক দইয়ের প্যাকটি আগা থেকে গোড়া পর্যন্ত খুব ভালভাবে লাগিয়ে নিন।

প্যাকটি ৪০ থেকে ৫০ মিনিট রেখে শ্যাম্পু করে নিন। তারপর কন্ডিশনার লাগান।এভাবে প্যাকটি মাসে দুইবার লাগাতে পারেন।

নিয়মিত ব্যবহারে যে উপকার পাবেন
(১) চুল পড়া বন্ধ
(২) আগা ফাটা সমস্যা দূর
(৩) চুলের ঘনত্ব বৃদ্ধি

সতর্কতা
(১) পরিষ্কার চুলে লাগান
(২) মেথিতে আপনার এলার্জি থাকলে ব্যবহার করবেন না।

প্রয়োজনীয় উপাদান
(১) মেথি দানা
(২) নারিকেল তেল।

প্রণালী
এক টেবিল চামচ নারিকেল তেল নিন। তাতে দুই চা চামচ মেথি দানা (চাইলে মেথি গুড়ো দিতে পারেন) দিন। নারিকেল তেল ফুটাতে থাকুন যতক্ষন পর্যন্ত না মেথি দানা লালচে বাদামি রঙ ধারণ না করে। লালচে বাদামি হয়ে যাওয়ার পর চুলা থেকে নামিয়ে নিন।

মেথি তেল থেকে আলাদা করে নিন। তেল যখন হালকা গরম হবে তখন তা নিয়ে স্ক্যাল্পসহ পুরো চুলে আলতো করে লাগিয়ে নিন। সারা রাত রেখে পরেরদিন শ্যাম্পু করে, চুলে কন্ডিশনার দিন।

এভাবে সপ্তাহে দুই বার এই তেলটি ব্যবহার করুন।

নিয়মিত ব্যবহারে যে উপকার পাবেন
(১) চুল পড়া বন্ধ হয়
(২) চুলের গোড়া মজবুত হয়
(৩) অকালে চুল পাকা থেকে রক্ষা পাওয়া যায়
(৪) আগের তুলনায় চুলের রুক্ষতা কমে, তাতে কোমলতা ফিরে আসে ও
(৫) স্ক্যাল্পের চুলকানি কমে ও খুশকি থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

সতর্কতা
(১) মেথিতে আপনার অ্যালার্জি থাকলে তেলটি আপনার উপযোগী নাও হতে পারে।