সরকারি চাকরিজীবীদের জন্য চালু হচ্ছে ‘হাওর ভাতা’

মঙ্গলবার, ২৬ জুন, ২০১৮ ১১:৩৭:৫০ পূর্বাহ্ণ
0
220
bdj
যুগেরকন্ঠ ডেস্ক:

দেশের হাওর অঞ্চলে কর্মরত সরকারি চাকরিজীবীদের জন্য ‘হাওর ভাতা’ চালু করতে যাচ্ছে সরকার। দুর্গম পার্বত্য ও পাহাড়ি এলাকার মতো তাদের মূল বেতনের ৩০ শতাংশ হারে এই ভাতা দেয়া হতে পারে।

বিগত কয়েকটি জেলা প্রশাসক (ডিসি) সম্মেলনে হাওর এলাকার ডিসিদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে এই উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। প্রণোদনামূলক এই ভাতার বিষয়টি যাচাই-বাছাইয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একজন অতিরিক্ত সচিবের নেতৃত্বে একটি কমিটি কাজ করছে। শিগগিরই এই ভাতা চালুর বিষয়ে ইতিবাচক সিদ্ধান্ত আসতে পারে।

গত বছরের ডিসি সম্মেলনে কিশোরগঞ্জের তৎকালীন জেলা প্রশাসক (ডিসি) মো. আজিমুদ্দিন বিশ্বাস হাওর ভাতা চালু করার জন্য একটি প্রস্তাব পাঠান মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসকের (ডিসি) দায়িত্বে থাকা অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক, শিক্ষা ও আইসিটি) তরফদার মো. আক্তার জামীল বলেন, আমাদের ডিসি স্যার হাওর ভাতা চালু করার বিষয়ে একটি প্রস্তাব দিয়েছিলেন। সরকারের শীর্ষমহল বিষয়টি বিবেচনায় নিয়েছে বলে জেনেছি।

নাম প্রকাশ না করে হাওর অঞ্চলের একটি জেলার একজন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক বলেন, হাওর অঞ্চলে কর্মরত সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সুযোগ-সুবিধা অনেক কম। সেখানে নাগরিক সুবিধা নেই বললেই চলে। কিছু কিছু এলাকা পাহাড়ি এলাকা থেকেও দুর্গম, বন্ধুর, অনুন্নত ও পশ্চাৎপদ। পাহাড়ি ভাতার মতো হাওর অঞ্চলে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের হাওর ভাতা দেয়া হলে তারা প্রণোদনা পাবে। এতে কাজের গতি আরও বাড়বে।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, দেশের সাতটি জেলার সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা হাওর ভাতার সুবিধা পাবেন। জেলাগুলো হলো- সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ, সিলেট, মৌলভীবাজার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, কিশোরগঞ্জ ও নেত্রকোনা।

হাওর ভাতা নিয়ে কাজ করছেন এমন একজন কর্মকর্তা বলেন, পাহাড়ি ভাতার মতো প্রণোদনামূলক হাওর ভাতা প্রচলনের জন্য কাজ চলছে। বিষয়টি যাচাই-বাছাই কমিটির সভায় প্রাথমিক সিদ্ধান্ত হবে। এরপর জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবর প্রস্তাব পাঠানো হবে। তারা যদি মনে করে এ ভাতা চালুর প্রয়োজন, তাহলে তারা ওই প্রস্তাব অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠাবে। সেখান থেকে সম্মতি মিললে তবেই ভাতা চালু হবে।

প্রসঙ্গত, বর্তমানে দেশের দুর্গম এলাকায় কর্মরত সরকারি চাকরিজীবীরা মূল বেতনের ৩০ শতাংশ হারে অথবা জেলা পর্যায়ে তিন হাজার টাকা এবং উপজেলা পর্যায়ে পাঁচ হাজার টাকা বিশেষ ভাতা পান।