এভাবেও ফিরে আসা যায়!

বুধবার, ২৭ জুন, ২০১৮ ১১:২৩:৩৩ পূর্বাহ্ণ
0
97
খেলা ডেস্ক:

বাছাইপর্বের শেষ ম্যাচ। ইকুয়েডরের বিপক্ষে জিততেই হবে আর্জেন্টিনাকে। হারলেই বিশ্বকাপ না খেলতে পারার আশঙ্কা।  ওই ম্যাচে দুর্দান্ত হ্যাটট্রিক করলেন লিওনেল মেসি। সব শঙ্কা উড়িয়ে সরাসরি বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা। এরপর বিশ্বকাপে গ্রুপপর্বের প্রথম ম্যাচে আইসল্যান্ডের বিপক্ষে ড্র। পরের ম্যাচে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে ৩-০ গোলে বিধ্বস্ত মেসিবাহিনী। প্রথম রাউন্ড থেকেই ছিটকে যাওয়ার ভয়। শেষ ম্যাচে সুপার ঈগলসখ্যাত নাইজেরিয়াকে হারাতেই হবে!

যেন বিপর্যয় অদূরে অপেক্ষা করছে। কয়েকটা মিনিটের ব্যবধানে হয়তো ইতিহাস তাকে সর্বকালের অন্যতম ট্র্যাজিক নায়কের তকমা দিয়ে দেবে! আর্জেন্টিনাবাসী দ্রুত ভুলে যেতে চাইতেন রাশিয়া বিশ্বকাপের ইতিবৃত্ত! অথচ বৃত্তটা সম্পূর্ণ করলেন তিনিই। যেখানে ধ্বংসের দূত দাঁড়িয়ে ঠিক তার এক কদম দূর থেকেই সৃষ্টির দেবদূত হয়ে উঠে মেসি বোঝালেন, এভাবেও ফিরে আসা যায়! নিজে প্রথম গোলটা করে স্বস্তি ফেরালেন আর্জেন্টাইন শিবিরে।

এরপর রোহো জয়সূচক গোলটা করতেই লাফিয়ে তার পিঠে উঠে পড়লেন মেসি। রোহোর পিঠে তখন পুরো আর্জেন্টিনাই।  ক্যামেরা তখন প্রাণপণে মেসির মুখের উপর ফেলছে আলো। পাল্লা দিয়ে দৌড়াচ্ছে আর ধরে রাখার চেষ্টা করছে আবেগের লেখচিত্র। মুখের অভিব্যক্তিতে যেন যন্ত্রণামুক্তির বহিঃপ্রকাশ। তিনি নাকি তেমন ভাল নেতা নন। এমনকী ক্রোয়েশিয়া ম্যাচের বিরুদ্ধে জঘন্য হারের পর স্বয়ং ম্যারাডোনাও বলে ফেলেছিলেন, ‘বাচ্চাটা তেমন লিডার গোছের নয়’।  অথচ ফুটবলপ্রেমীরা জানেন, তিনি নেতৃত্ব দিয়ে খেলতেই ভালবাসেন। শুধু গোলমুখে দাঁড়িয়ে থেকে পাসের অপেক্ষা করেন না। বরং অনেক নিচে নেমে খেলাটা তৈরি করে গোল করেন। সেই মেসি গত দুটি ম্যাচে যে কোনও কারণেই হোক সত্যি নেতা হয়ে উঠতে পারেননি। তবে তৃতীয় ম্যাচে বুঝিয়ে দিলেন, তিনি নেতাই। শুধু বোঝার ভুল হয়েছিল। পরে বললেনও, দেশের জার্সির থেকে বড় আর কিছু হতে পারে না।

একই কথা বলতে হয় মাসচেরানোর জন্যও। শোনা যায় সাম্পাওলিকে একঘরে দল বাছার দায়িত্ব নিয়েছিলেন তারা দু’জন। দলকে জোতানোর দায়িত্বও যেন নিয়েছিলেন। এদিন বারবার তার প্রমাণ মিলল। মেসি-মাসচেরানো জুটি আর্জেন্টিনাকে একটা দলের রূপ দিল, যা সাম্পাওলি দিতে পারেননি। সাফল্য এলো। নক-আউটে পৌঁছানো হলো। সম্ভাবনার দরজা খুলল। বাকিটা সময়ের হাতে। তবে এদিন মেসি যেন অগুনতি সমর্থককে বুঝিয়ে দিলেন, এ পৃথিবীতে অসম্ভব বলে যে কিছুই নেই এটাই ম্যাজিক। খাদের কিনারা যেমন আছে, তেমন  সেখান থেকেও এভাবে বারেবার ফিরেও আসা যায়।