বৃষ্টিতে বাড়তি ভাড়া গুনতে হচ্ছে উবার যাত্রীদের!

শনিবার, ১৪ জুলাই, ২০১৮ ১১:১০:০৬ পূর্বাহ্ণ
0
61
অনলাইন ডেস্ক:

প্রায়ই বাড়তি ভাড়া গুনতে হচ্ছে উবার ব্যবহারকারীদের। বিশেষত বৃষ্টি পড়লেই এমনটা বেশি হচ্ছে। ভাড়া বাড়ছে গ্রাহকভেদে। অফিস ছুটির সময় কিংবা যানবাহন সংকট হলেও বাড়ছে ভাড়া। এ ব্যাপারে উবার কর্তৃপক্ষের বলছে, তারা বিশ্বজুড়েই ‘ডায়নামিক’ বা গতিশীল ভাড়ার নীতি অনুসরণ করে। এ জন্য ভাড়ায় তারতম্য দেখা যায়।

মহাখালী থেকে উত্তরা যেতে আমিনুল ইসলাম প্রায়ই উবারের প্রাইভেটকার ব্যবহার করেন। যার ভাড়া ৩০০ থেকে সাড়ে ৩০০ টাকার মধ্যে থাকে। কিন্তু একদিন টিপ টিপ বৃষ্টির মধ্যে উবার অ্যাপে কল দিতেই দেখলেন ভাড়া দেখাচ্ছে ৫৫০ টাকা। তিনি তখন প্রথমবারের প্রক্রিয়া বাতিল করে আবারও কল প্রক্রিয়া সম্পন্ন করলেন। তখন ভাড়া আসে ৫৮২ টাকা। এবার তিনি খেয়াল করেন, মনিটরের ওপরের দিকে ছোট হরফে লেখা রয়েছে ‘ফেয়ার স্লাইটলি হায়ার ডিউ টু ইনক্রিজিং ডিমান্ড’। যাত্রীর মন্তব্য, ‘বৃষ্টি দেখলে সিএনজিচালিত অটোরিকশাওয়ালারাও বেশি ভাড়া দাবি করেন। উবারও দাবি করছে। তাহলে পার্থক্য কোথায়?’

প্রায় এক বছর ধরে উবার ব্যবহারকারী রাশেদ আহমেদ রাজধানীর তেজগাঁও থেকে উবারে কল প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে গিয়ে দেখেন, ভাড়া ৪০০ টাকার জায়গায় ৬০০ টাকা দেখানো হচ্ছে। বৃষ্টি নেই, যানজটও নেই, অথচ ভাড়া বেশি দেখানোর কারণে তিনি এ প্রক্রিয়া বাতিল করেন। এর পর চার মাস ধরে উবার ব্যবহারকারী তার স্ত্রী উবার কল প্রক্রিয়া চালিয়ে দেখেন, তার মোবাইলে ৩৭৫ টাকা ভাড়া দেখানো হচ্ছে। যদিও তার মোবাইলে কোনো প্রোমো কোডও সক্রিয় নেই। রাশেদের প্রশ্ন, দু’জনের কাছে একই স্থান থেকে একই দূরত্বে ভাড়ার এই তারতম্য কেন?

অবশ্য উবারের অ্যাপেই এসব নিয়ে অভিযোগ জানানোর ব্যবস্থা আছে। কিন্তু বেশিরভাগ ব্যবহারকারীই তা সঠিকভাবে জানেন না। তা ছাড়া উবার অ্যাপে শুধু চালকের আচরণ সম্পর্কেই অভিযোগ জানানো যায়। ঢাকায় উবারের কোনো গ্রাহক অভিযোগ কেন্দ্র বা কল সেন্টারও নেই। ফলে সাধারণ গ্রাহকদের অভিযোগ জানানোর কোনো স্থান নেই।

এসব বিষয়ে উবার কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকষৃণ করা হলে তারা জানান, উবার ভাড়ার ক্ষেত্রে ‘ডায়নামিক’ বা গতিশীল ভাড়ার নীতি অনুসরণ করে। যার অর্থ পরিস্থিতি অনুযায়ী ভাড়ার হার পরিবর্তিত হতে পারে। গ্রাহকের গাড়ি প্রাপ্তির সর্বোচ্চ সুবিধা নিশ্চিত করতেই এমন করা হয়।