প্রচ্ছদ

বিদায়ের আগে কাঁপিয়ে দিয়ে যাচ্ছে শীত

৩১ জানুয়ারি ২০২১, ১০:৫৫

যুগের কন্ঠ ২৪ ডট কম
কুড়িগ্রামের রাজারহাটে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। ছবি সংগৃহীত
::নিজস্ব প্রতিবেদক::

তীব্র শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে দেশের উত্তর-পশ্চিম জনপদে। কনকনে শীতে জনজীবনে নেমে এসেছে স্থবিরতা। সেই সঙ্গে দেখা মিলছে না সূর্যের। অব্যাহত ঘন কুয়াশা ও কনকনে হাঁড় কাপানো ঠান্ডায় নাকাল খেটে খাওয়া ও নিম্ন আয়ের শ্রমজীবী মানুষ।

রোববার কুড়িগ্রামের রাজারহাটে থার্মোমিটারের পারদ নেমেছে ৫ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা চলতি শীত মৌসুমে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। তাপমাত্রা কমে যাওয়ায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছে এই জেলার পাঁচ শতাধিক চর ও দ্বীপ চরের মানুষসহ নিম্নবিত্ত ও ছিন্নমূল মানুষজন।

বাংলাদেশে শীতের দাপট মূলত চলে জানুয়ারি মাসজুড়ে। ডিসেম্বরের মাঝামাঝি ও মধ্য জানুয়ারিতে দুই দফা মৃদু শৈত্যপ্রবাহের পর জানুয়ারির শেষে এসে তৃতীয় দফা শৈত্যপ্রবাহ বইছে। সেই সঙ্গে পাতা ঝরার দিনও চলছে প্রকৃতিতে। বিদায়ের আগে কাঁপিয়ে দিয়ে যাচ্ছে শীত।

রোববার রাজশাহীতে সর্বনিম্ন ৫ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। এছাড়া চুয়াডাঙ্গা ও ঈশ্বরদীতে ৬ দশমিক ২, বদলগাছি ও সৈয়দপুরে ৬ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে।

বগুড়া, রংপুর, দিনাজপুর, তেঁতুলিয়া, ডিমলা, যশোর আর শ্রীমঙ্গলে তাপমাত্রা ছিল ৭ থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে। আর ঢাকায় থার্মোমিটারের পারদ নেমেছে ১১ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, কুড়িগ্রাম, শ্রীমঙ্গলসহ বিস্তীর্ণ অঞ্চলে বয়ে যাওয়া এ শৈত্যপ্রবাহ আরো দুয়েকদিন অব্যাহত থাকবে।

গত বৃহস্পতিবার থেকে রংপুর রিভাগসহ গোপালগঞ্জ, সীতাকুন্ড, কুমিল্লা, শ্রীমঙ্গল, রাজশাহী, পাবনা, যশোর এবং চুয়াডাঙ্গা অঞ্চলে এই শৈত্যপ্রবাহ শুরু হয়।

এর আগে গত ১৮-২৩ ডিসেম্বর এবং ২৬-৩১ ডিসেম্বর রংপুর, রাজশাহী, কুষ্টিয়া ও যশোর অঞ্চলে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যায়।

রোববারের আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, সারাদেশে আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকবে। মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত ঘন কুয়াশা বিরাজ করতে পারে।

Shares