প্রচ্ছদ

“সেক্রেটারিয়াল এবং কমপ্লাইয়েন্স অডিট” শীর্ষক আইসিএসবির সিপিডি প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত

১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৪:১৬

যুগের কন্ঠ ২৪ ডট কম

::নিজস্ব প্রতিবেদক ::

ইন্সটিটিউট অব চার্টার্ড সেক্রেটারিজ অব বাংলাদেশ (আইসিএসবি) বুধবার (১০ ফেব্রুয়ারি) “সেক্রেটারিয়াল এবং কমপ্লাইয়েন্স অডিট ” শীর্ষক সিপিডি সেমিনার ভার্চুয়ালি আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ড. মোঃ হামিদ উল্লাহ ভূইঞা, চেয়ারম্যান, ফিনান্সিয়াল রিপোর্টিং কাউন্সিল (এফআরসি)। ইনস্টিটিউটের সদ্য প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট এবং প্রফেশনাল ডেভেলপমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সানাউল্লাহ এফসিএস সিপিডি প্রোগ্রামের সভাপতিত্ব করেন। মোজাফফর আহমেদ এফসিএস, প্রেসিডেন্ট, আইসিএসবি উক্ত সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন। এ কে এ মুক্তাদির এফসিএস, আইসিএসবির প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও চিফ কনসালট্যান্ট, আল-মুক্তাদির অ্যাসোসিয়েটস মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। মূল প্রবন্ধ এর উপর মনোনীত আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এস আব্দুর রশিদ এফসিএস, প্রাকটিসিং চার্টার্ড সেক্রেটারি, এস এ রশিদ অ্যান্ড অ্যাসোসিয়েটস এবং এম নাসিমুল হাই এফসিএস বসুন্ধরা গ্রুপের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর অ্যান্ড কোম্পানি সেক্রেটারি ও আইসিএসবির কাউন্সিল সদস্য ।

ইনস্টিটিউটের প্রেসিডেন্ট মোজাফফর আহমেদ এফসিএস তার স্বাগত বক্তব্যে সকলকে সেমিনারে অংশ নেয়ার জন্য ধন্যবাদ জানান এবং আশা করেন যে এই প্রোগ্রামটির মাধ্যমে সদস্যরা উপকৃত হবেন। তিনি ড. মোঃ হামিদ উল্লাহ ভূইঞাকে তার উপস্থিতি জন্য বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানান। তিনি প্রত্যাশা করেন যে আইসিএসবি এবং এফআরসির সহযোগিতা আগামীতে অব্যাহত থাকবে।

তিনি বলেন যে, এখন বাংলাদেশের কর্পোরেট জগৎ একটি নতুন রূপ নিচ্ছে এবং এফআরসি নতুন নিয়মকানুন এর মাধ্যমে এটি করার জন্য প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। মূল প্রবন্ধ এর উপস্থাপকএ কে এ মুক্তাদির এফসিএসতারউপস্থাপনায়সেক্রেটারিয়াল এবং কমপ্লাইয়েন্স অডিটএরবিভিন্নবিষয়েআলোচনাকরেন। তিনি কর্পোরেট কমপ্লায়েন্সের ৬ টি ফ্রন্ট এবং কর্পোরেট গভর্নেন্স কোডের ৯ টি শর্তের বিষয়ে আলোচনা করেন। তিনি বিশেষত আর্থিক সম্মতি, কর্পোরেট গভর্নমেন্ট কোড এবং বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়াল স্ট্যান্ডার্ড (বিএসএস) নিয়েও আলোচনা করেন।

তিনি কিছু প্রতিবন্ধকতা যেমন- বোর্ডের পরিচালক, স্বতন্ত্র পরিচালক, বোর্ড রিপোর্ট, সিজি বর্ণনাকারী, এক কর্মকর্তার একাধিক নিয়োগ, নিরীক্ষা ফি, সেক্রেটারিয়াল অডিটরের কোনও প্যানেল না থাকা, সুশাসনের মানদণ্ড এসব বিষয় ধরেছিলেন।

এস আব্দুর রশিদ এফসিএস মূল প্রবন্ধ উপস্থাপককে তার উপস্থাপনার জন্য ধন্যবাদ জানান। তিনি সেক্রেটারিয়াল নিরীক্ষণের উদ্দেশ্য এবং সুযোগ সম্পর্কে আলোচনা করেন। তিনি সরকারী ও বেসরকারী উভয় সংস্থায় সেক্রেটারিয়াল এবং কমপ্লাইয়েন্স অডিটের গুরুত্ব দিয়েছেন।

আলোচনায় অংশ নিয়ে এম নাসিমুল হাই এফসিএস বিনিয়োগকারীদের স্বার্থ রক্ষার জন্য সেক্রেটারিয়াল ও কমপ্লায়েন্স অডিটের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন। তিনি অসম প্রতিযোগিতা, নির্দিষ্ট ফির অনুপস্থিতি, সিএস অডিটরের প্যানেল চূড়ান্ত করার সম্পর্কে উল্লেখ করেন। সেক্রেটারিয়াল অডিটথেকে কোন সংস্থা যে সুবিধাসমুহ পেতে পারে সে সম্পর্কেও তিনি উল্লেখ করেছিলেন।

সিপিডি প্রোগ্রামের সভাপতি মোহাম্মদ সানাউল্লাহ এফসিএস এই প্রোগ্রামের সারসংক্ষেপ উপস্থাপন করেন। তিনি বলেন যে সেক্রেটারিয়াল অডিট চালু করা উচিত। তিনি আরও বলেন, সেক্রেটারিয়াল অডিট পরিচালনার জন্য আইসিএসবি এবং এর সদস্যদের প্রচারে এফআরসি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

তিনি নিম্নোক্ত প্রস্তাবনাসমূহ পেশ করেনঃ
১. মূলধন এবং টার্নওভার/আয়ের উপর ভিত্তি করে সরকারী ও বেসরকারী সকল প্রতিষ্ঠানে সেক্রেটারিয়াল অডিট প্রবর্তন;
২. আইসিএসবির প্রাকটিসিং চার্টার্ড সেক্রেটারিদের মাধ্যমে সেক্রেটারিয়াল অডিট করানো; এবং
৩. নিয়ন্ত্রক সংস্থা হিসাবে এফআরসি দেশে সেক্রেটারিয়াল অডিট কার্যক্রম তদারকি করতে পারে।
তিনি আইসিএসবি থেকে একজন কাউন্সিল সদস্যকে এফআরসি বোর্ডে অন্তর্ভুক্ত করার পরামর্শ দিয়েছেন।

প্রধান অতিথি ড. মোঃ হামিদ উল্লাহ ভূইঞা সেক্রেটারিয়াল ও কমপ্লায়েন্স অডিট সম্পর্কিত একটি অনুষ্ঠানের আয়োজনের জন্য ইনস্টিটিউটকে ধন্যবাদ জানান। বক্তব্যে তিনি এফআরসির মূল কার্যক্রম সমূহ তুলে ধরেন। তিনি আরও উল্লেখ করেছিলেন যে চার্টার্ড সেক্রেটারিগন সেক্রেটারিয়াল ও কমপ্লায়েন্স অডিটপরিচালনায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে পারে। তিনি প্রশংসা করেন যে আইসিএসবি চারটি বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়াল স্ট্যান্ডার্ডস (বিএসএস) তৈরি করেছে যা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং বিভিন্ন সংস্থাদ্বারা বিএসএস সমূহ অনুশীলন ও গৃহীত হওয়া উচিত।

প্রধান অতিথি উল্লেখ করেছিলেন যে কর্পোরেট গভর্নেন্সই সেই সেক্টর যেখানে আইসিএসবি নিবেদিতভাবে কাজ করছে তাই তারা সমস্ত সেক্রেটারিয়াল ও কমপ্লায়েন্স অডিট জন্য এক্সক্লুসিভ স্পেশালাইজড প্রফেশনাল।

প্রাণবন্ত ভার্চুয়াল প্রোগ্রামটি একটি ইন্টারেক্টিভ প্রশ্নোত্তর পর্বের মাধ্যমে শেষ হয়েছিল যেখানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপক অংশগ্রহণকারীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দিয়েছিলেন।পরিশেষে, ইসরাত জাহান রিমি এসিএসআইসিএসবির পক্ষ থেকে সবাইকে ধন্যবাদ জানান।

দেশের বিভিন্ন তালিকাভুক্ত সংস্থা, কর্পোরেট নেতৃবৃন্দ এবং সরকারী প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ইনস্টিটিউটের বিপুল সংখ্যক সদস্য প্রোগ্রামে উপস্থিত ছিলেন।

Shares