প্রাথমিকের দুই শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ

পটুয়াখালী প্রতিনিধি;
  • প্রকাশিত: ১৮ নভেম্বর ২০২১, ১২:০৫ অপরাহ্ণ | আপডেট: ১ সপ্তাহ আগে

ছবি সংগৃহীত

পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় প্রাথমিকের প্রধান শিক্ষক গাজী হারুন অর রশিদ ও সহকারী শিক্ষক মো. জাকির হোসেনের বিরুদ্ধে ফৌজদারি অপরাধ সংক্রান্ত প্রমাণের বিলোপ, প্রতারণা, আত্মসাৎ ও হুমকির অভিযোগ আমলে নিয়ে বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার উপজেলার ধূলাসার ইউনিয়নের নয়াকাটা গ্রামের কামাল হোসেনের নালিশি মামলা আমলে নিয়ে কলাপাড়া সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শোভন শাহরিয়ারের আদালত এ আদেশ দেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ১০৫ নং বৌলতলি সৈয়দপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গাজী হারুন অর রশিদ প্রাথমিক শিক্ষা অফিস ম্যানেজ করে গোপনে বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদ গঠনের উদ্যোগ নেন। এতে সংক্ষুব্ধ ছাত্র অভিভাবক কামাল হোসেন ১১ নভেম্বর কলাপাড়া সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে দেওয়ানি মামলা দায়ের করেন। সহকারী জজ আদালত প্রধান শিক্ষকসহ ১০ জনকে ৭ দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নির্দেশ দেন আদালত।

মামলায় আরও উল্লেখ করা হয়, আসামিরা সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের ৩য় শ্রেণির ছাত্র মো. শাকিলের নাম লিপিবদ্ধকৃত ভর্তি রেজিস্ট্রার ও হাজিরা খাতা নষ্ট করে নতুন ভর্তি রেজিস্ট্রার ও হাজিরা খাতা তৈরি করেন। শাকিল বিদ্যালয়ের ছাত্র নয় মর্মে আসামিরা কৌশলে শাকিলকে বিদ্যালয়ে নিয়া প্রাথমিকের বই রেখে দেয়ার চেষ্টা করে। পরে বাদী আসামিদের কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে আসামিরা তাকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানিসহ খুন-জখমের হুমকি দেয়।

কলাপাড়া সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট মো. আনোয়ার হোসাইন আদালতের আদেশের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, প্রধান শিক্ষক গাজী হারুন অর রশিদ জাল জালিয়াতিবাজ, প্রতারক, টাউট ও সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক। তার নামে একাধিক মামলা আছে।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...