ঢাকা ০৪:৫৬ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে মামলা চলবে কিনা, জানা যাবে ৮ মে

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট : ০৭:৫২:৫৮ অপরাহ্ন, সোমাবার, ৩ এপ্রিল ২০২৩
  • / 139
শ্রম আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে করা মামলা বাতিলের আবেদন হাইকোর্টে খারিজের বিরুদ্ধে গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ ইউনূসের লিভ টু আপিলের ওপর শুনানি শেষ হয়েছে। এ বিষয়ে আদেশ দেয়ার জন্য আগামী ৮ মে দিন নির্ধারণ করেছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। ড. মুহাম্মদ ইউনূসের নামে মামলা চলবে কি না ওইদিন তা জানা যাবে।

সোমবার আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মো. নুরুজ্জামান নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগ আদেশের জন্য এ দিন ধার্য করেন।

আদালতে ড. মুহাম্মদ ইউনূসের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার আবদুল্লাহ আল মামুন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন। আর কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান অধিদপ্তরের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী খুরশিদ আলম খান।

শ্রম আইন লঙ্ঘনের অভিযোগ তুলে ২০২১ সালের ৯ সেপ্টেম্বর ঢাকার তৃতীয় শ্রম আদালতে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান অধিদপ্তরের একজন শ্রম পরিদর্শক বাদী হয়ে ড. ইউনূসসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলাটি করেন। ওই মামলা বাতিল চেয়ে ড. ইউনূস হাইকোর্টে আবেদন করেন। এর শুনানি নিয়ে গত বছরের ১২ ডিসেম্বর হাইকোর্ট রুলসহ মামলার কার্যক্রমে স্থগিতাদেশ দেন।

পরে মামলা বাতিল প্রশ্নে রুলের ওপর চূড়ান্ত শুনানি শেষে ড. মুহাম্মদ ইউনূসের করা আবেদন খারিজ (রুল ডিসচার্জ) করে রায় দেন হাইকোর্ট। ফলে মামলার কার্যক্রম সচলের সুযোগ তৈরি হয়। তবে এই রায় স্থগিত চেয়ে ড. ইউনূস আবেদন করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে মামলা চলবে কিনা, জানা যাবে ৮ মে

আপডেট : ০৭:৫২:৫৮ অপরাহ্ন, সোমাবার, ৩ এপ্রিল ২০২৩
শ্রম আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে করা মামলা বাতিলের আবেদন হাইকোর্টে খারিজের বিরুদ্ধে গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ ইউনূসের লিভ টু আপিলের ওপর শুনানি শেষ হয়েছে। এ বিষয়ে আদেশ দেয়ার জন্য আগামী ৮ মে দিন নির্ধারণ করেছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। ড. মুহাম্মদ ইউনূসের নামে মামলা চলবে কি না ওইদিন তা জানা যাবে।

সোমবার আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মো. নুরুজ্জামান নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগ আদেশের জন্য এ দিন ধার্য করেন।

আদালতে ড. মুহাম্মদ ইউনূসের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার আবদুল্লাহ আল মামুন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন। আর কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান অধিদপ্তরের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী খুরশিদ আলম খান।

শ্রম আইন লঙ্ঘনের অভিযোগ তুলে ২০২১ সালের ৯ সেপ্টেম্বর ঢাকার তৃতীয় শ্রম আদালতে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান অধিদপ্তরের একজন শ্রম পরিদর্শক বাদী হয়ে ড. ইউনূসসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলাটি করেন। ওই মামলা বাতিল চেয়ে ড. ইউনূস হাইকোর্টে আবেদন করেন। এর শুনানি নিয়ে গত বছরের ১২ ডিসেম্বর হাইকোর্ট রুলসহ মামলার কার্যক্রমে স্থগিতাদেশ দেন।

পরে মামলা বাতিল প্রশ্নে রুলের ওপর চূড়ান্ত শুনানি শেষে ড. মুহাম্মদ ইউনূসের করা আবেদন খারিজ (রুল ডিসচার্জ) করে রায় দেন হাইকোর্ট। ফলে মামলার কার্যক্রম সচলের সুযোগ তৈরি হয়। তবে এই রায় স্থগিত চেয়ে ড. ইউনূস আবেদন করেন।