ঝিনাইদহে বাঁশ কাটায় যুবককে কুপিয়ে হত্যা

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি;
  • প্রকাশিত: ২৪ অক্টোবর ২০২১, ১২:৩৫ অপরাহ্ণ | আপডেট: ১ মাস আগে

ছবি সংগৃহীত

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে ঘরের ওপর ন্যুয়ে পড়া ঝাড়ের বাঁশ কাটায় আল ইসলাম (৩৫) নামে একজনকে কুপিয়ে হত্যা করেছে প্রতিবেশীরা। রোববার বিকালে খুলনার একটি হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

আল ইসলাম কালীগঞ্জের বারোবাজার ইউনিয়নের বাদুরগাছা গ্রামের ইসমাইল হোসেনের ছেলে। এ ঘটনায় কালীগঞ্জ থানায় গত শুক্রবার একটি মামলা হলেও এখনো কেউ গ্রেপ্তার হয়নি।

মামলার বরাত দিয়ে কালীগঞ্জের সুবর্নসরা পুলিশ ক্যাম্পের তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মতিয়ার রহমান জানান, আল ইসলামের বাড়ির ওপর প্রতিবেশী সোহেল হোসেনের ঝাড়ের বাঁশ ন্যুয়ে ঘরের ক্ষতি করছিল। বাঁশগুলো কেটে নিতে দীর্ঘদিন ধরে বলা হালেও কাটা হচ্ছিল না। ফলে গত ১৮ অক্টোবর আল ইসলাম নিজেই ঘরের ওপর ঝুলে থাকা তিনটি বাঁশ কেটে দেন।

এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে সোহেল হোসেন ও তার পরিবারের লোকজন ধারালো অস্ত্র, লোহার রড ও লাঠিসোটা নিয়ে আল ইসলামের বাড়িতে প্রবেশ করে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে। আল ইসলাম বাড়ির মধ্যে প্রবেশ ও গালিগালাজ করতে নিষেধ করলে সাজ্জাদ হোসেনের ছেলে সোহেল, হবিবর শেখের ছেলে মস্ত ও তার স্ত্রী শান্তা খাতুন, হবিবর শেখের স্ত্রী আনু খাতুন ও মেয়ে শিলিফা খাতুন দলবদ্ধ হয়ে আল ইসলামের ওপর হামলা করে।

এ সময় স্বামীকে ঠেকাতে গিয়ে তার স্ত্রী নাজনীন নাহার শিলা শ্লীলতাহানির শিকার হন। পরে আল ইসলামকে তারা কুপিয়ে ও লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে মুমূর্ষু অবস্থায় ফেলে রেখে যায়।

আল ইসলামের স্ত্রী শিলা জানান, প্রথমে তাকে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য যশোর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে ভর্তির পর অবস্থা সঙ্কটাপন্ন হয়ে পড়লে তাকে যশোর থেকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি করা হয়। সেখানে রোববার বিকালে তিনি মারা যান।

বিষয়টি নিয়ে কালীগঞ্জ থানার ওসি মাহফুজুর রহমান মিয়া জানান, এ ঘটনায় গত শুক্রবার থানায় একটি মামলা হয়েছে। আসামিরা পলাতক থাকায় মোবাইল ট্র্যাকিং করে তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। মামলাটি এখন হত্যা মামলায় রূপান্তরিত করা হবে।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...