ঢাকা ০৭:৫৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ১৭ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পিরোজপুর জেলায় প্রথম নারী ব্যারিষ্টার সাদিয়া করিম স্নিগ্ধা

লন্ডনের অনারেবল সোসাইটি অব লিংকন্স ইন থেকে ব্যারিস্টারি পাস করেছেন সাদিয়া করিম স্নিগ্ধা। তিনি পিরোজপুর জেলার প্রথম নারী ব্যারিস্টার। সাদিয়ার বাড়ি পিরোজপুর জেলার নাজিরপুর উপজেলার মাটিভাঙ্গা ইউনিয়নের তারাবুনিয়া গ্রামে। তিনি মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম ও কবি পারভীন রেজার একমাত্র মেয়ে। এর আগে তাদের ছেলে শেখ তানভীর করিম রাসেলও একই প্রতিষ্ঠান থেকে ব্যারিস্টারি পাস করেছেন। তিনি এখন আইন পেশায় নিযুক্ত।

সন্তানদের ব্যারিস্টারি পাসের খবরে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে শুক্রবার (২৯ জুলাই) নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে পোস্ট দিয়েছেন রেজাউল করিম। এতে তিনি লিখেছেন, ‘আলহামদুলিল্লাহ। আমাদের ছেলে শেখ তানভীর করিম রাসেল এবং মেয়ে শেখ সাদিয়া করিম স্নিগ্ধা উভয়েই ব্যারিস্টার। অনারেবল সোসাইটি অব লিংকনস ইনের মেম্বার। সবার দোয়া চাই ওদের জন্য। ওরা যেন আদর্শ মানুষ হতে পারে। আইন পেশাকে পবিত্রতার সঙ্গে গ্রহণ করে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় যেন সর্বোচ্চ আন্তরিকতা নিয়ে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে পারে।’

কবি পারভীন রেজা বলেন, ‘আমার ছেলেমেয়ে আইন পেশায় নিয়োজিত রেখে সাধারণ মানুষকে সেবা দিক। কোনও অন্যায়-অনিয়মের সঙ্গে তারা যেন না জড়ায় এটা আমরা চাই।’

সাদিয়া করিম স্নিগ্ধা বলেন, স্বপ্ন আমার আমার আইন বিষয়ে সর্বোচ্চ ডিগ্রি পি এইচ ডি অর্জন। এ লক্ষ্যে প্রি পি এইচ ডি কোর্সে পড়াশুনা শুরু করেছি। এরপর তিনি বলেন, পড়াশুনা শেষে ‘দেশে ফিরে আইন পেশায় নিযুক্ত হবো। দেশের অসহায় সাধারণ মানুষকে বিনামূল্যে আইনি সহায়তা দেবো।’

নাজিরপুরের শাখারীকাঠী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান খালিদ হোসেন সজল বলেন, ‘সাদিয়ার সাফল্যে আমরা আনন্দিত ও গর্বিত। সাদিয়া ও তার ভাই শেখ তানভীর করিম রাসেলকে কাছ থেকে দেখেছি। তারা দুই জনেই অনেক ভালো।’

জাতীয় মহিলা সংস্থা পিরোজপুর জেলা শাখার চেয়ারম্যান কাজী রুহিয়া বেগম হাসি বলেন, ‘সাদিয়া করিম স্নিগ্ধার ব্যারিস্টার হওয়ার খবরে আমি আনন্দিত, আমরা নারী সমাজ গর্বিত। নারী ব্যারিস্টার হয়ে বিশ্বের দরবারে পিরোজপুরকে আলাদাভাবে পরিচয় করিয়ে দিলেন সাদিয়া। তাকে পিরোজপুরের নারী শিক্ষার্থীরা অনুসরণ করবে।’

জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ হাকিম হাওলাদার বলেন, ‘সাদিয়া করিম জেলার প্রথম নারী ব্যারিস্টিার। এর আগে এই জেলার কোনও নারী ব্যারিস্টারি পাস করেননি।’এরপর তিনি বলেন, বরিশাল বিভাগে একই পরিবার থেকে দুজন ব্যারিষ্টার হওয়ার ঘটনা এই প্রথম।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, সাদিয়ার জন্ম ১৯৯৬ সালে। তিনি মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল থেকে ২০১২ সালে এসএসসি ও ২০১৪ সালে হলি ক্রস স্কুল থেকে এইচএসসি পাস করেন। ২০১৬ সালে ইউনিভার্সিটি অব লন্ডন থেকে ডিপ্লোমা ইন ল’ এবং ২০১৭ সালে লন্ডন পিয়ারসন কলেজ থেকে হায়ার ন্যাশনাল সার্টিফিকেট (এইচএনসি) ইন ল’ অর্জন করেন। ২০১৯ সালে লন্ডনের সাউথ ওয়েলস ইউনিভার্সিটি থেকে এলএলবি (অনার্স) এবং ২০২১ সালে বিপিপি ইউনিভার্সিটি থেকে এলএলএম এবং এ বছর লন্ডনের অনারেবল সোসাইটি অব লিংকন্স ইন থেকে ব্যারিস্টার অ্যাট ল’ অর্জন করলেন। দুই ভাই বোনের মধ্যে সাদিয়া ছোট।

ট্যাগস :

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published.

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

জনপ্রিয় সংবাদ

পিরোজপুর জেলায় প্রথম নারী ব্যারিষ্টার সাদিয়া করিম স্নিগ্ধা

আপডেট সময় : ০৪:৩৯:৫৭ অপরাহ্ন, সোমাবার, ৮ অগাস্ট ২০২২

লন্ডনের অনারেবল সোসাইটি অব লিংকন্স ইন থেকে ব্যারিস্টারি পাস করেছেন সাদিয়া করিম স্নিগ্ধা। তিনি পিরোজপুর জেলার প্রথম নারী ব্যারিস্টার। সাদিয়ার বাড়ি পিরোজপুর জেলার নাজিরপুর উপজেলার মাটিভাঙ্গা ইউনিয়নের তারাবুনিয়া গ্রামে। তিনি মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম ও কবি পারভীন রেজার একমাত্র মেয়ে। এর আগে তাদের ছেলে শেখ তানভীর করিম রাসেলও একই প্রতিষ্ঠান থেকে ব্যারিস্টারি পাস করেছেন। তিনি এখন আইন পেশায় নিযুক্ত।

সন্তানদের ব্যারিস্টারি পাসের খবরে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে শুক্রবার (২৯ জুলাই) নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে পোস্ট দিয়েছেন রেজাউল করিম। এতে তিনি লিখেছেন, ‘আলহামদুলিল্লাহ। আমাদের ছেলে শেখ তানভীর করিম রাসেল এবং মেয়ে শেখ সাদিয়া করিম স্নিগ্ধা উভয়েই ব্যারিস্টার। অনারেবল সোসাইটি অব লিংকনস ইনের মেম্বার। সবার দোয়া চাই ওদের জন্য। ওরা যেন আদর্শ মানুষ হতে পারে। আইন পেশাকে পবিত্রতার সঙ্গে গ্রহণ করে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় যেন সর্বোচ্চ আন্তরিকতা নিয়ে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে পারে।’

কবি পারভীন রেজা বলেন, ‘আমার ছেলেমেয়ে আইন পেশায় নিয়োজিত রেখে সাধারণ মানুষকে সেবা দিক। কোনও অন্যায়-অনিয়মের সঙ্গে তারা যেন না জড়ায় এটা আমরা চাই।’

সাদিয়া করিম স্নিগ্ধা বলেন, স্বপ্ন আমার আমার আইন বিষয়ে সর্বোচ্চ ডিগ্রি পি এইচ ডি অর্জন। এ লক্ষ্যে প্রি পি এইচ ডি কোর্সে পড়াশুনা শুরু করেছি। এরপর তিনি বলেন, পড়াশুনা শেষে ‘দেশে ফিরে আইন পেশায় নিযুক্ত হবো। দেশের অসহায় সাধারণ মানুষকে বিনামূল্যে আইনি সহায়তা দেবো।’

নাজিরপুরের শাখারীকাঠী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান খালিদ হোসেন সজল বলেন, ‘সাদিয়ার সাফল্যে আমরা আনন্দিত ও গর্বিত। সাদিয়া ও তার ভাই শেখ তানভীর করিম রাসেলকে কাছ থেকে দেখেছি। তারা দুই জনেই অনেক ভালো।’

জাতীয় মহিলা সংস্থা পিরোজপুর জেলা শাখার চেয়ারম্যান কাজী রুহিয়া বেগম হাসি বলেন, ‘সাদিয়া করিম স্নিগ্ধার ব্যারিস্টার হওয়ার খবরে আমি আনন্দিত, আমরা নারী সমাজ গর্বিত। নারী ব্যারিস্টার হয়ে বিশ্বের দরবারে পিরোজপুরকে আলাদাভাবে পরিচয় করিয়ে দিলেন সাদিয়া। তাকে পিরোজপুরের নারী শিক্ষার্থীরা অনুসরণ করবে।’

জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ হাকিম হাওলাদার বলেন, ‘সাদিয়া করিম জেলার প্রথম নারী ব্যারিস্টিার। এর আগে এই জেলার কোনও নারী ব্যারিস্টারি পাস করেননি।’এরপর তিনি বলেন, বরিশাল বিভাগে একই পরিবার থেকে দুজন ব্যারিষ্টার হওয়ার ঘটনা এই প্রথম।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, সাদিয়ার জন্ম ১৯৯৬ সালে। তিনি মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল থেকে ২০১২ সালে এসএসসি ও ২০১৪ সালে হলি ক্রস স্কুল থেকে এইচএসসি পাস করেন। ২০১৬ সালে ইউনিভার্সিটি অব লন্ডন থেকে ডিপ্লোমা ইন ল’ এবং ২০১৭ সালে লন্ডন পিয়ারসন কলেজ থেকে হায়ার ন্যাশনাল সার্টিফিকেট (এইচএনসি) ইন ল’ অর্জন করেন। ২০১৯ সালে লন্ডনের সাউথ ওয়েলস ইউনিভার্সিটি থেকে এলএলবি (অনার্স) এবং ২০২১ সালে বিপিপি ইউনিভার্সিটি থেকে এলএলএম এবং এ বছর লন্ডনের অনারেবল সোসাইটি অব লিংকন্স ইন থেকে ব্যারিস্টার অ্যাট ল’ অর্জন করলেন। দুই ভাই বোনের মধ্যে সাদিয়া ছোট।