ঢাকা ০২:০১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কলাবাগানে গলায় গামছা পেঁচিয়ে রিকশা চালককে হত্যা

ফরিদপুর প্রতিনিধি
  • আপডেট : ০৬:৩০:৩৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৯ এপ্রিল ২০২৩
  • / 99
ফরিদপুরে কলাবাগানে গলায় গামছা পেঁচিয়ে আনু মৃধা নামে এক রিকশা চালককে হত্যার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে সোহাগ মৃধা (২৪) নামে এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃত সোহাগ জেলা সদরের ঈশান গোপালপুর ইউনিয়নের চাঁদপুর গ্রামের শাহজাহান মৃধার ছেলে।

শনিবার সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে ফরিদপুর পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার মো. শাহজাহান সোহাগকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ও তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় শুক্রবার (২৮ এপ্রিল) দিবাগত রাত ১২ টার দিকে জেলার সদর উপজেলার ঈশান গোপালপুর ইউনিয়নের চাঁদপুর এলাকা থেকে ওই যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়।

পুলিশ সুপার শাহজাহান বলেন, গত ১৬ এপ্রিল দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে নিহত রিকশাচালক আনু মৃধা তার নিজ বাড়ি হইতে পাশের শিবরামপুর স্ট্যান্ডে পেপার কিনতে আসে। পথেমধ্যে দুপুর দেড়টার দিকে গ্রেফতারকৃত সোহাগ মৃধা চাঁদপুর যাওয়ার কথা বলে আনু মৃধার রিক্সা ৩০ টাকা ভাড়া ঠিক করেন। এসময় চাঁদপুর এলাকার আঃ রাজ্জাক নামের এক ব্যক্তির কলাবাগানে ঘাস আনার কথা বলে রওনা দেয়। রাজ্জাকের কলার বাগানের কাছে রাস্তার ওপর রিক্সা দাঁড় করে আসামী রিক্সা থেকে নেমে কলা বাগানের ভিতর ঘাসের বস্তা আনতে যায়, কিছুক্ষণ পর কলা বাগান থেকে বেরিয়ে কলা বাগান ও রাস্তার মাঝামাঝি এসে আসামী রিক্সা চালককে চাচা বলে ডাক দেয় এবং কলা বাগানের ভিতরে ঘাসের বস্তা একা তুলতে পারছে না বলে তাকে আসতে বলে।

পুলিশ সুপার আরও বলেন, রিক্সা চালক আনু মৃধা তার রিক্সাটি রাস্তার পাশে রেখে আসামীর ডাকে সাড়া দিয়ে তার কাছে এগিয়ে যায়। পরবর্তীতে দু’জন একসাথে কলা বাগানে প্রবেশ করার সময় আসামী সোহাগ মৃধা কৌশলে রিক্সা চালক আনুকে সামনে দিয়ে সে পিছনে পিছনে কলা বাগানের ভিতর যাওয়ার জন্য হাঁটতে থাকে। উভয়েই কলা বাগানের ভিতর পৌঁছাইলে রিক্সা চালকের গলায় ঝুঁলানো গামছাটি আসামী পিছন থেকে দুই হাত দিয়ে ধরে গলায় পেঁচ দিয়ে জোরে টান দিলে রিক্সা চালক আনুর নিশ্বাস বন্ধ হয়ে মাটিতে পড়ে যায়। তারপরে গামছার দুই মাথা শক্তভাবে দুই দিকে টেনে শ্বাসরোধ করে রিক্সা চালক আনুর মৃত্যু নিশ্চিত করে। পরে এ ঘটনায় নিহত রিক্সা চালককের ছেলে পিয়াস মৃধা বাদী হয়ে কোতয়ালী থানায় একটি মামলা দায়ের করে। অতঃপর পুলিশ তদন্ত করে ও তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় এ হত্যার সাথে জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়ায় সোহাগ মৃধা নামের এক যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার মো. শাহজাহান ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন- অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সুমন রঞ্জন সরকার, কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এম,এ জলিল, ডিবির ওসি মো. রাকিবুল ইসলামসহ পুলিশ ও প্রিন্ট-ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।

উল্লেখ্য, গত ১৬ এপ্রিল ফরিদপুরের সদর উপজেলার ঈশান গোপালপুর ইউনিয়নের চাঁদপুর গ্রামের একটি কলাবাগান থেকে গলায় গামছা পেঁচানো আনু মৃধা নামে এক রিকশা চালকের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এঘটনার পরদিন ১৭ এপ্রিল নিহত রিক্সা চালকের ছেলে পিয়াস মৃধা কোতয়ালী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরে এ ঘটনার রহস্য উদঘাটনে ও এর সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তারে মাঠে নামে পুলিশ।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

কলাবাগানে গলায় গামছা পেঁচিয়ে রিকশা চালককে হত্যা

আপডেট : ০৬:৩০:৩৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৯ এপ্রিল ২০২৩
ফরিদপুরে কলাবাগানে গলায় গামছা পেঁচিয়ে আনু মৃধা নামে এক রিকশা চালককে হত্যার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে সোহাগ মৃধা (২৪) নামে এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃত সোহাগ জেলা সদরের ঈশান গোপালপুর ইউনিয়নের চাঁদপুর গ্রামের শাহজাহান মৃধার ছেলে।

শনিবার সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে ফরিদপুর পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার মো. শাহজাহান সোহাগকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ও তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় শুক্রবার (২৮ এপ্রিল) দিবাগত রাত ১২ টার দিকে জেলার সদর উপজেলার ঈশান গোপালপুর ইউনিয়নের চাঁদপুর এলাকা থেকে ওই যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়।

পুলিশ সুপার শাহজাহান বলেন, গত ১৬ এপ্রিল দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে নিহত রিকশাচালক আনু মৃধা তার নিজ বাড়ি হইতে পাশের শিবরামপুর স্ট্যান্ডে পেপার কিনতে আসে। পথেমধ্যে দুপুর দেড়টার দিকে গ্রেফতারকৃত সোহাগ মৃধা চাঁদপুর যাওয়ার কথা বলে আনু মৃধার রিক্সা ৩০ টাকা ভাড়া ঠিক করেন। এসময় চাঁদপুর এলাকার আঃ রাজ্জাক নামের এক ব্যক্তির কলাবাগানে ঘাস আনার কথা বলে রওনা দেয়। রাজ্জাকের কলার বাগানের কাছে রাস্তার ওপর রিক্সা দাঁড় করে আসামী রিক্সা থেকে নেমে কলা বাগানের ভিতর ঘাসের বস্তা আনতে যায়, কিছুক্ষণ পর কলা বাগান থেকে বেরিয়ে কলা বাগান ও রাস্তার মাঝামাঝি এসে আসামী রিক্সা চালককে চাচা বলে ডাক দেয় এবং কলা বাগানের ভিতরে ঘাসের বস্তা একা তুলতে পারছে না বলে তাকে আসতে বলে।

পুলিশ সুপার আরও বলেন, রিক্সা চালক আনু মৃধা তার রিক্সাটি রাস্তার পাশে রেখে আসামীর ডাকে সাড়া দিয়ে তার কাছে এগিয়ে যায়। পরবর্তীতে দু’জন একসাথে কলা বাগানে প্রবেশ করার সময় আসামী সোহাগ মৃধা কৌশলে রিক্সা চালক আনুকে সামনে দিয়ে সে পিছনে পিছনে কলা বাগানের ভিতর যাওয়ার জন্য হাঁটতে থাকে। উভয়েই কলা বাগানের ভিতর পৌঁছাইলে রিক্সা চালকের গলায় ঝুঁলানো গামছাটি আসামী পিছন থেকে দুই হাত দিয়ে ধরে গলায় পেঁচ দিয়ে জোরে টান দিলে রিক্সা চালক আনুর নিশ্বাস বন্ধ হয়ে মাটিতে পড়ে যায়। তারপরে গামছার দুই মাথা শক্তভাবে দুই দিকে টেনে শ্বাসরোধ করে রিক্সা চালক আনুর মৃত্যু নিশ্চিত করে। পরে এ ঘটনায় নিহত রিক্সা চালককের ছেলে পিয়াস মৃধা বাদী হয়ে কোতয়ালী থানায় একটি মামলা দায়ের করে। অতঃপর পুলিশ তদন্ত করে ও তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় এ হত্যার সাথে জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়ায় সোহাগ মৃধা নামের এক যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার মো. শাহজাহান ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন- অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সুমন রঞ্জন সরকার, কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এম,এ জলিল, ডিবির ওসি মো. রাকিবুল ইসলামসহ পুলিশ ও প্রিন্ট-ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।

উল্লেখ্য, গত ১৬ এপ্রিল ফরিদপুরের সদর উপজেলার ঈশান গোপালপুর ইউনিয়নের চাঁদপুর গ্রামের একটি কলাবাগান থেকে গলায় গামছা পেঁচানো আনু মৃধা নামে এক রিকশা চালকের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এঘটনার পরদিন ১৭ এপ্রিল নিহত রিক্সা চালকের ছেলে পিয়াস মৃধা কোতয়ালী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরে এ ঘটনার রহস্য উদঘাটনে ও এর সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তারে মাঠে নামে পুলিশ।