ঢাকা ১০:১০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৫ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অতি বিলাসী ফল আমদানি বন্ধে ভোক্তা অধিকারের সুপারিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট : ০৭:২০:৪৩ অপরাহ্ন, সোমাবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩
  • / 143
আসন্ন রমজানে ফলের বাজার স্থিতিশীল রাখতে অতি বিলাসী বিদেশি ফল আমদানি বন্ধ করতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে সুপারিশ করেছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর।

ভোক্তা অধিকার বলছে, বিদেশ থেকে আমদানি করা ড্রাগন, রাম্বুটান, অ্যাভোকাডো ও রকমেলনের মতো বিলাসবহুল ফল সুপারশপ এবং অভিজাত এলাকার ফলের দোকানে অতি উচ্চ দামে বিক্রি হচ্ছে। যার প্রভাব পড়ছে দেশি ফলের বাজারে। পাশাপাশি আপেল, আঙুর ও কমলার মতো বিদেশি ফলের দামও বাড়ছে।

সোমবার ভোক্তা অধিদপ্তরের সভাকক্ষে পাইকারি ও খুচরা ফল ব্যবসায়ীদের অংশগ্রহণে মতবিনিময় সভায় এ কথা জানান অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এ এইচ এম সফিউজ্জামান।

তিনি বলেন, গত দেড় মাস আগে রমজানে অতি বিলাসবহুল ফল আমদানি বন্ধে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে সুপারিশ করা হয়েছে। এ বৈঠকের পরে আবারও সেটা জানানো হবে। আমরা বলছি, অতি বিলাসবহুল ফল আমদানি আপাতত বন্ধ রাখা যেতে পারে। ভবিষ্যতে দেশে এসব বিদেশি ফল উৎপাদন বাড়ানোর জন্য কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কাজ করতে পারে কি না সেটা দেখতেও আমরা সুপারিশ করেছি।

একই সঙ্গে বিদেশি ফল আমদানি নিরুৎসাহিত করতে বিদ্যমান শুল্ক কাঠামো পরিবর্তন করার সুপারিশ করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

তিনি ফল ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে বলেন, প্রয়োজনে ফল বন্দরে আসার আগে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে খালাসের জন্য আমাদের তথ্য দিন। আমরা সেটা দেখবো।

ভোক্তা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বলেন, দেশি ফলে এসব সমস্যা নেই। তারপরও বাজারে ফলের দাম অস্বাভাবিক। কলার হালি ৫০ টাকায় উঠেছে। একটি কলার দাম সাড়ে ১২ টাকা, এটা অস্বাভাবিক! বিদেশি ফলের দামের কারণে এসব বেড়েছে। এটার সমন্বয় দরকার।

তিনি বলেন, গত বছর রমজানে তরমুজ নিয়ে অস্থিরতা হয়েছে। সেখানে আমরা বাজারে সিন্ডিকেট পেয়েছি। তখন ক্ষেতে প্রতি পিস ১০০ টাকার তরমুজ বাজারে এনে ৮০০ টাকায় বিক্রির প্রমাণ মিলেছে।

সফিউজ্জামান আরও বলেন, পণ্যের হাত বদলে দাম বাড়ছে। কিন্তু সেটা অস্বাভাবিক। এজন্য বিপণন আইন রয়েছে। তাতে লাভের মাত্রা নিয়ে বলা আছে। এ ধরনের পণ্যে সর্বোচ্চ ৩০ শতাংশ লাভ করা যায়। নিত্যপণ্যে সেটা আরও কম। কিন্তু ব্যবসায়ীরা করছেন কয়েকগুণ। রমজানে সেটা আমরা আরও কঠিনভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে চাই।

ভোক্তার মহাপরিচালক বলেন, রমজানে বাজার নিয়ন্ত্রণ এ দেশের প্রেক্ষাপটে একটি চ্যালেঞ্জের জায়গা। আবার বৈশ্বিক অস্থিরতা পরিস্থিতির মধ্যে সেটা এবার আরও বড় চ্যালেঞ্জ। কিন্তু সেটা করতে হবে। সবাইকে সহনশীল হতে হবে। ব্যবসায়ীদের কম লাভ করতে হবে। ভোক্তাকেও সহনশীল হতে হবে এখন। মনে রাখবেন রমজান খরচের মাস নয়, সংযমের মাস।

তিনি বলেন, আসুন রমজানের কৃচ্ছ্রসাধন ও পবিত্রতা বজায় রাখি। উত্তরা থেকে চকবাজারে এসে ইফতার কেনা বন্ধ করি। এ বছর খারাপ সময় যাচ্ছে। সবাই মিলে চেষ্টা করে এ খারাপ সময় ভালোভাবে পার করবো।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

অতি বিলাসী ফল আমদানি বন্ধে ভোক্তা অধিকারের সুপারিশ

আপডেট : ০৭:২০:৪৩ অপরাহ্ন, সোমাবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩
আসন্ন রমজানে ফলের বাজার স্থিতিশীল রাখতে অতি বিলাসী বিদেশি ফল আমদানি বন্ধ করতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে সুপারিশ করেছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর।

ভোক্তা অধিকার বলছে, বিদেশ থেকে আমদানি করা ড্রাগন, রাম্বুটান, অ্যাভোকাডো ও রকমেলনের মতো বিলাসবহুল ফল সুপারশপ এবং অভিজাত এলাকার ফলের দোকানে অতি উচ্চ দামে বিক্রি হচ্ছে। যার প্রভাব পড়ছে দেশি ফলের বাজারে। পাশাপাশি আপেল, আঙুর ও কমলার মতো বিদেশি ফলের দামও বাড়ছে।

সোমবার ভোক্তা অধিদপ্তরের সভাকক্ষে পাইকারি ও খুচরা ফল ব্যবসায়ীদের অংশগ্রহণে মতবিনিময় সভায় এ কথা জানান অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এ এইচ এম সফিউজ্জামান।

তিনি বলেন, গত দেড় মাস আগে রমজানে অতি বিলাসবহুল ফল আমদানি বন্ধে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে সুপারিশ করা হয়েছে। এ বৈঠকের পরে আবারও সেটা জানানো হবে। আমরা বলছি, অতি বিলাসবহুল ফল আমদানি আপাতত বন্ধ রাখা যেতে পারে। ভবিষ্যতে দেশে এসব বিদেশি ফল উৎপাদন বাড়ানোর জন্য কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কাজ করতে পারে কি না সেটা দেখতেও আমরা সুপারিশ করেছি।

একই সঙ্গে বিদেশি ফল আমদানি নিরুৎসাহিত করতে বিদ্যমান শুল্ক কাঠামো পরিবর্তন করার সুপারিশ করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

তিনি ফল ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে বলেন, প্রয়োজনে ফল বন্দরে আসার আগে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে খালাসের জন্য আমাদের তথ্য দিন। আমরা সেটা দেখবো।

ভোক্তা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বলেন, দেশি ফলে এসব সমস্যা নেই। তারপরও বাজারে ফলের দাম অস্বাভাবিক। কলার হালি ৫০ টাকায় উঠেছে। একটি কলার দাম সাড়ে ১২ টাকা, এটা অস্বাভাবিক! বিদেশি ফলের দামের কারণে এসব বেড়েছে। এটার সমন্বয় দরকার।

তিনি বলেন, গত বছর রমজানে তরমুজ নিয়ে অস্থিরতা হয়েছে। সেখানে আমরা বাজারে সিন্ডিকেট পেয়েছি। তখন ক্ষেতে প্রতি পিস ১০০ টাকার তরমুজ বাজারে এনে ৮০০ টাকায় বিক্রির প্রমাণ মিলেছে।

সফিউজ্জামান আরও বলেন, পণ্যের হাত বদলে দাম বাড়ছে। কিন্তু সেটা অস্বাভাবিক। এজন্য বিপণন আইন রয়েছে। তাতে লাভের মাত্রা নিয়ে বলা আছে। এ ধরনের পণ্যে সর্বোচ্চ ৩০ শতাংশ লাভ করা যায়। নিত্যপণ্যে সেটা আরও কম। কিন্তু ব্যবসায়ীরা করছেন কয়েকগুণ। রমজানে সেটা আমরা আরও কঠিনভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে চাই।

ভোক্তার মহাপরিচালক বলেন, রমজানে বাজার নিয়ন্ত্রণ এ দেশের প্রেক্ষাপটে একটি চ্যালেঞ্জের জায়গা। আবার বৈশ্বিক অস্থিরতা পরিস্থিতির মধ্যে সেটা এবার আরও বড় চ্যালেঞ্জ। কিন্তু সেটা করতে হবে। সবাইকে সহনশীল হতে হবে। ব্যবসায়ীদের কম লাভ করতে হবে। ভোক্তাকেও সহনশীল হতে হবে এখন। মনে রাখবেন রমজান খরচের মাস নয়, সংযমের মাস।

তিনি বলেন, আসুন রমজানের কৃচ্ছ্রসাধন ও পবিত্রতা বজায় রাখি। উত্তরা থেকে চকবাজারে এসে ইফতার কেনা বন্ধ করি। এ বছর খারাপ সময় যাচ্ছে। সবাই মিলে চেষ্টা করে এ খারাপ সময় ভালোভাবে পার করবো।