ঢাকাবৃহস্পতিবার , ১৩ জানুয়ারী ২০২২

লকডাউনে পার্টি: বরিস জনসনের পদত্যাগ দাবি

যুগের কন্ঠ
জানুয়ারী ১৩, ২০২২ ১:৩২ অপরাহ্ন
Link Copied!

ব্রিটেনে লকডাউন চলাকালে মদ্যপানের পার্টিতে উপস্থিত হওয়ার জেরে দেশটির প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের পদত্যাগের দাবি উঠেছে। বৃহস্পতিবার বিবিসি এ খবর জানায়।

পার্টিতে উপস্থিত হওয়ার কথা স্বীকার করে বুধবার ব্রিটিশ পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ হাউজ অব কমন্সে ক্ষমা চেয়েছেন বরিস জনসন। এর পরই তার পদত্যাগ দাবি করেন নিজ দলের জ্যেষ্ঠ নেতারা।

২০২০ সালে ডাউনিং স্ট্রিটের বাগানে ওই পার্টির আয়োজন করা হয়। বরিস জানান, এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্রিটিশদের মধ্যে যে ক্ষোভ তৈরি হয়েছে, তা তিনি বুঝতে পেরেছেন।

স্কটল্যান্ডের রক্ষণশীল দলের নেতা ডগলাস রস, উইলিয়াম রগ, ক্যারোলিন নোকস ও রজার গালে সরাসরি প্রধানমন্ত্রী বরিসের পদত্যাগ দাবি করেন।

জনসনের দাবি করেন, তিনি তখন ভেবেছিলেন যে, ওই পার্টি অফিসের কাজেরই একটি অনুষ্ঠান। এরপরই তিনি পার্লামেন্টে বলেন, ‘আমি আমার কৃতকর্মের জন্য ক্ষমা চাই।’

এ ঘটনায় রাজনীতিকদের তীব্র সমালোচনার শিকার হচ্ছেন জনসন। অভিযোগ উঠেছে, তিনি মহামারীকালের বিধিনিষেধকে তাচ্ছিল্য করেছেন।

তবে তার সরকারের উপ-প্রধানমন্ত্রী ডমিনিক রাবসহ ব্রিটিশ মন্ত্রিসভার বেশ কয়েকজন সদস্য জনসনের পাশে দাঁড়িয়েছেন।

স্কটিশ রক্ষণশীল নেতা ডগলাস রস জানান, বুধবার সকালে হাউস অব কমন্সে জনসন ক্ষমা চাওয়ার পর এ প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার ‘কঠিন কথোপকথন’ হয়েছে।

রস জানান, প্রধানমন্ত্রীর প্রতি তার অনাস্থা জানাতে তিনি ১৯২২ কমিটির কাছে লিখবেন; এই কমিটি ব্রিটিশ রক্ষণশীল দলের নেতৃত্ব প্রতিযোগিতার আয়োজন করে।

তিনি বলেন, ‘তিনি প্রধানমন্ত্রী, তার সরকারই বিধিনিষেধগুলো জারি করেছিল, তাকে তার কর্মের জন্য জবাবদিহি করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘তিনি প্রধানমন্ত্রী; এটা তার সরকার, যারা এসব বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। এ কারণে তার পদক্ষেপের জন্য তাকে জবাবদিহি করতে হবে।’

সরকারি পদে নেই- এমন পেছনের সারির ৫৪ জন রক্ষণশীল এমপি যদি ১৯২২ কমিটির কাছে চিঠি পাঠায় তাহলে রক্ষণশীল দলের নেতৃত্ব চ্যালেঞ্জের মুখে পড়বে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।