ঢাকা ০৮:২৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিক্ষোভের মধ্যেই ফ্রান্সে বিতর্কিত পেনশন বিল অনুমোদন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • আপডেট : ০৬:৩৩:১৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১২ মার্চ ২০২৩
  • / 110
ফ্রান্সে বিক্ষোভ-আন্দোলন স্বত্ত্বেও অবসরের বয়সসীমা বৃদ্ধিতে অনুমোদন দিলো সিনেট। খুব শিগগিরই সেটি আইনে পরিণত করবে ফরাসি পার্লামেন্ট। শনিবার গভীর রাত পর্যন্ত ভোটাভুটিতে অংশ নেন আইনপ্রণেতারা। পেনশন সংস্কার প্রস্তাবের পক্ষে সমর্থন দেন ১৯৫ সিনেটর। বিপক্ষে ছিলেন ১১২ জন।

সাধারণ ভোটের পর দেশটির প্রধানমন্ত্রী এলিজাবেথ বোর্ন টুইটারে বলেন, কয়েকশ ঘণ্টার আলোচনা শেষে সিনেট পেনশন সংস্কার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। ভবিষ্যতে আমাদের পেনশন ব্যবস্থা নিশ্চিতে এটি প্রধান পদক্ষেপ।

তিনি বলেন, তিনি নিশ্চিত করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ যে, এসব লিখিত বিষয় ভবিষ্যতে গৃহীত হবে।

মূলত অবসরের বয়সসীমা ৬২ থেকে ৬৪ বছর করার প্রস্তাব দিয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাক্রোঁ। তাতে বাঁচানো সম্ভব বিশাল অংকের বাজেট। সেটিই মানতে নারাজ সাধারণ ফরাসিরা। শনিবারও রাজধানীসহ গুরুত্বপূর্ণ শহরগুলোয় বিক্ষোভ করেন তিন লাখ ৬৮ হাজারের বেশি মানুষ। অগ্নিসংযোগ-ভাঙচুর চালানোয় অন্তত ৩২ জন আটক হন।

আগামী বুধবার গৃহীত বিলটি পর্যবেক্ষণ করবে পার্লামেন্টের যৌথ কমিটি। এমপিরা সন্তোষ প্রকাশ করলে বৃহস্পতিবার হবে চূড়ান্ত ভোট। ধারণা করা হচ্ছে, নিম্নকক্ষে বিলটি বিরোধীতার মুখে পড়তে পারে। কেননা, সেখানে প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাক্রোঁ জোট সংখ্যালঘু। সূত্র: ফ্রান্স২৪

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

বিক্ষোভের মধ্যেই ফ্রান্সে বিতর্কিত পেনশন বিল অনুমোদন

আপডেট : ০৬:৩৩:১৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১২ মার্চ ২০২৩
ফ্রান্সে বিক্ষোভ-আন্দোলন স্বত্ত্বেও অবসরের বয়সসীমা বৃদ্ধিতে অনুমোদন দিলো সিনেট। খুব শিগগিরই সেটি আইনে পরিণত করবে ফরাসি পার্লামেন্ট। শনিবার গভীর রাত পর্যন্ত ভোটাভুটিতে অংশ নেন আইনপ্রণেতারা। পেনশন সংস্কার প্রস্তাবের পক্ষে সমর্থন দেন ১৯৫ সিনেটর। বিপক্ষে ছিলেন ১১২ জন।

সাধারণ ভোটের পর দেশটির প্রধানমন্ত্রী এলিজাবেথ বোর্ন টুইটারে বলেন, কয়েকশ ঘণ্টার আলোচনা শেষে সিনেট পেনশন সংস্কার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। ভবিষ্যতে আমাদের পেনশন ব্যবস্থা নিশ্চিতে এটি প্রধান পদক্ষেপ।

তিনি বলেন, তিনি নিশ্চিত করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ যে, এসব লিখিত বিষয় ভবিষ্যতে গৃহীত হবে।

মূলত অবসরের বয়সসীমা ৬২ থেকে ৬৪ বছর করার প্রস্তাব দিয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাক্রোঁ। তাতে বাঁচানো সম্ভব বিশাল অংকের বাজেট। সেটিই মানতে নারাজ সাধারণ ফরাসিরা। শনিবারও রাজধানীসহ গুরুত্বপূর্ণ শহরগুলোয় বিক্ষোভ করেন তিন লাখ ৬৮ হাজারের বেশি মানুষ। অগ্নিসংযোগ-ভাঙচুর চালানোয় অন্তত ৩২ জন আটক হন।

আগামী বুধবার গৃহীত বিলটি পর্যবেক্ষণ করবে পার্লামেন্টের যৌথ কমিটি। এমপিরা সন্তোষ প্রকাশ করলে বৃহস্পতিবার হবে চূড়ান্ত ভোট। ধারণা করা হচ্ছে, নিম্নকক্ষে বিলটি বিরোধীতার মুখে পড়তে পারে। কেননা, সেখানে প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাক্রোঁ জোট সংখ্যালঘু। সূত্র: ফ্রান্স২৪