আমি আজ স্মারকলিপি নিলাম : আইনমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক;
  • প্রকাশিত: ২৩ নভেম্বর ২০২১, ১:২৬ অপরাহ্ণ | আপডেট: ১ সপ্তাহ আগে

ছবি সংগৃহীত

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সদস্যদের উদ্দেশে বলেছেন, খালেদা জিয়ার বিদেশে উন্নত চিকিৎসার জন্য আপনারা যে স্মারকলিপি দিয়েছেন সেটা আমি অবশ্যই পর্যালোচনা করব। তবে সিদ্ধান্ত ও মতামতের ব্যাপারে আলোচনার প্রয়োজন আছে। সেটা আমরা করব।

মঙ্গলবার (২৩ নভেম্বর) দুপুরে সচিবালয়ে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের কেন্দ্রীয় কমিটির ১৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি প্রতিনিধি দল আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হকের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি এসব কথা বলেন। আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সচিব মো. ফজলুর রহমানের নেতৃত্বে ১৫ সদস্যর একটি প্রতিনিধি দল আইনমন্ত্রীর দফতরে সাক্ষাৎ করে স্মারকলিপি দেন।

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আমি একটা কথা স্মরণ করিয়ে দিতে চাই, যখন খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হয় তখন কিন্তু উনার পরিবারের আবেদন মানবিক বিবেচনায় দেখেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তখন কিন্তু কোনো দাবি তুলতে হয়নি, প্রধানমন্ত্রী নিজেই এটা করেছেন। সেক্ষেত্রে মানবিকতার কমতি আমাদের নেই। আমরা মানবিকতা দেখাতে জানি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও মানবিকতা দেখাতে জানেন।’

আইনমন্ত্রী আরও বলেন, ‘এটার ফাইল আমার হাতে রয়েছে, আপনারা আসবেন বলে আমি ফাইলটি ডিসপোজ করিনি। নিশ্চয়ই আমরা এই দিকটা দেখব। আমি আলাপ-আলোচনা করে গুরুত্ব দিয়ে যতটুকু সিদ্ধান্ত নেওয়া যায় আমরা সেভাবেই সিদ্ধান্ত নেব।’

আনিসুল হক বলেন ‘৪০১ ধারার আলোচনায় আমি এখন যেতে চাই না। আমাদের স্বাভাবিক আইনে মতপার্থক্য থাকবে। আমারও আপনাদের সঙ্গে আইনে মতপার্থক্য আছে। আপনারা যে ৪০১ ধারা-উপধারার কথা বলেছেন, সেখানে আপনারা বলেছেন- কোথাও বিদেশ যাওয়া যাবে না কথাটি বলা নেই। সেখানে বিদেশ যাওয়ার বিষয়ে বলা না থাকলেও একটা কথা বলা আছে, সেটা হলো শর্তযুক্ত বা শর্তমুক্ত। সেখানে দুটি শর্ত দেওয়া হয়েছে। আমি সেই আইনের দিকে যাব না।’

আনিসুল হক বলেন, ‘আমি আজ স্মারকলিপি নিলাম। কিন্তু আজ যদি প্রিম্যাচিউর্ড কিছু বলি সেটা সঠিক হবে না। আমাকে একটু সময় দিতে হবে। আমি এটা নিয়ে আলাপ-আলোচনা করব। কেউ জানে বেঁচে থাকুক বা জানে বেঁচে না থাকুক সেটা আমাদের উদ্দেশ্য নয়। বেগম জিয়ার চিকিৎসা হচ্ছে সেটা সবাই জানেন। তাই আমি এটা নিয়ে একটু আলাপ-আলোচনা করি। তারপর জানাব।’

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...