ঢাকা ০৮:৫০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

২৪ মে থেকে লঞ্চ চালুর দাবি

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট : ০২:০৩:৫৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২২ মে ২০২১
  • / 185

প্রতীকী ছবি

::নিজস্ব প্রতিবেদক::

স্বাস্থ্যবিধি মেনে আগামী ২৪ মে থেকে সারাদেশে যাত্রীবাহী লঞ্চ চলাচলে অনুমতি দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-চলাচল যাত্রী পরিবহন সংস্থা।

শনিবার রাজধানীর সদরঘাটে সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সংগঠনের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট বদিউজ্জামান বাদল।

তিনি বলেন, দীর্ঘদিন নৌযান বন্ধ থাকায় সবদিক থেকে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন শ্রমিকরা। অথচ গার্মেন্টস, দোকানপাট খুলে দেয়া হয়েছে।

বদিউজ্জামান বলেন, গত মার্চ মাসে যখন দ্বিতীয় বারের মতো কোভিড-১৯ আমাদের দেশে হানা দেয়। সরকারের পক্ষ থেকে তখন সীমিত আকারে স্বাস্থ্যবিধি মেনে লঞ্চ পরিচালনার নির্দেশনার আলোকে আমরা ধারণ ক্ষমতার অর্ধেকেরও কম যাত্রী নিয়ে জাহাজ পরিচালনা করি। লাভ লোকসান যা-ই ছিল অন্তত শ্রমিক কর্মচারীদের বেতন ও ব্যাংক লোনের টাকা পরিশোধের একটা ব্যবস্থা ছিল। কিন্তু লঞ্চ বন্ধ থাকায় আমরা সবদিক দিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি।

নৌ-চলাচল যাত্রী পরিবহন সংস্থার সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট বলেন, পরবর্তীতে আমরা দেখলাম সরকার পণ্যবাহী গাড়ি ও পণ্যবাহী নৌযান ব্যতীত গণপরিবহনসহ সবকিছুই লকডাউনের আওতায় নিয়ে আসে। আমরা মেনে নিয়েছি। এরপর আমরা দেখলাম সমস্ত গার্মেন্টস খুলে দেয়া হলো। তারপর দোকানপাট, শপিংমল, হোটেল-রেস্তোরাঁ খুলে দেয়া হলো। তারপর সব মহানগরীতে গণপরিবহন (বাস) চলাচলের অনুমতি দেয়া হলো। তারপর সব জেলায় জেলায় বাস চলাচলের অনুমতি দেয়া হলো। তারপর বিমান চলাচলের অনুমতি দেয়া হলো। বাকি রইল আমাদের এই অবহেলিত লঞ্চ। কেন এই বৈষম্য?

তিনি আরো বলেন, আমরা সরকারকে অগ্রিম আয়কর, বিআইডব্লিউটিএকে অগ্রিম কারভেন্সি, ডিজি শিপিংকে অগ্রিম সার্ভে ও রেজিস্ট্রেশন ফি দিয়ে যাচ্ছি। লঞ্চ চলুক আর না চলুক তাতে সরকার এক টাকাও মাফ করেন না। আমরা বিভিন্নভাবে বলেছি যে, অন্তত মাওয়া ও আরিচা যেহেতু পারাপার সার্ভিস সেহেতু ফেরিতে গাদাগাদি যাতে না হয় সে জন্য লঞ্চগুলো চলাচলের ব্যবস্থা করা হোক। কিন্তু সরকার তা আমলে নেয়নি।

উল্লেখ্য, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ সামাল দিতে সারাদেশে গত ১৪ এপ্রিল ভোর ৬টা থেকে দেশে ‘কঠোর লকডাউন’ চলছে। ৪ দফা লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানো হয়, যা আগামী ২৩ মে মধ্যরাত পর্যন্ত থাকবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

২৪ মে থেকে লঞ্চ চালুর দাবি

আপডেট : ০২:০৩:৫৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২২ মে ২০২১
::নিজস্ব প্রতিবেদক::

স্বাস্থ্যবিধি মেনে আগামী ২৪ মে থেকে সারাদেশে যাত্রীবাহী লঞ্চ চলাচলে অনুমতি দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-চলাচল যাত্রী পরিবহন সংস্থা।

শনিবার রাজধানীর সদরঘাটে সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সংগঠনের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট বদিউজ্জামান বাদল।

তিনি বলেন, দীর্ঘদিন নৌযান বন্ধ থাকায় সবদিক থেকে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন শ্রমিকরা। অথচ গার্মেন্টস, দোকানপাট খুলে দেয়া হয়েছে।

বদিউজ্জামান বলেন, গত মার্চ মাসে যখন দ্বিতীয় বারের মতো কোভিড-১৯ আমাদের দেশে হানা দেয়। সরকারের পক্ষ থেকে তখন সীমিত আকারে স্বাস্থ্যবিধি মেনে লঞ্চ পরিচালনার নির্দেশনার আলোকে আমরা ধারণ ক্ষমতার অর্ধেকেরও কম যাত্রী নিয়ে জাহাজ পরিচালনা করি। লাভ লোকসান যা-ই ছিল অন্তত শ্রমিক কর্মচারীদের বেতন ও ব্যাংক লোনের টাকা পরিশোধের একটা ব্যবস্থা ছিল। কিন্তু লঞ্চ বন্ধ থাকায় আমরা সবদিক দিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি।

নৌ-চলাচল যাত্রী পরিবহন সংস্থার সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট বলেন, পরবর্তীতে আমরা দেখলাম সরকার পণ্যবাহী গাড়ি ও পণ্যবাহী নৌযান ব্যতীত গণপরিবহনসহ সবকিছুই লকডাউনের আওতায় নিয়ে আসে। আমরা মেনে নিয়েছি। এরপর আমরা দেখলাম সমস্ত গার্মেন্টস খুলে দেয়া হলো। তারপর দোকানপাট, শপিংমল, হোটেল-রেস্তোরাঁ খুলে দেয়া হলো। তারপর সব মহানগরীতে গণপরিবহন (বাস) চলাচলের অনুমতি দেয়া হলো। তারপর সব জেলায় জেলায় বাস চলাচলের অনুমতি দেয়া হলো। তারপর বিমান চলাচলের অনুমতি দেয়া হলো। বাকি রইল আমাদের এই অবহেলিত লঞ্চ। কেন এই বৈষম্য?

তিনি আরো বলেন, আমরা সরকারকে অগ্রিম আয়কর, বিআইডব্লিউটিএকে অগ্রিম কারভেন্সি, ডিজি শিপিংকে অগ্রিম সার্ভে ও রেজিস্ট্রেশন ফি দিয়ে যাচ্ছি। লঞ্চ চলুক আর না চলুক তাতে সরকার এক টাকাও মাফ করেন না। আমরা বিভিন্নভাবে বলেছি যে, অন্তত মাওয়া ও আরিচা যেহেতু পারাপার সার্ভিস সেহেতু ফেরিতে গাদাগাদি যাতে না হয় সে জন্য লঞ্চগুলো চলাচলের ব্যবস্থা করা হোক। কিন্তু সরকার তা আমলে নেয়নি।

উল্লেখ্য, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ সামাল দিতে সারাদেশে গত ১৪ এপ্রিল ভোর ৬টা থেকে দেশে ‘কঠোর লকডাউন’ চলছে। ৪ দফা লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানো হয়, যা আগামী ২৩ মে মধ্যরাত পর্যন্ত থাকবে।