আদিয়ান মার্টের সিইওসহ তিনজন রিমান্ডে  

নিজস্ব প্রতিবেদক;
  • প্রকাশিত: ২ নভেম্বর ২০২১, ১:৩৫ অপরাহ্ণ | আপডেট: ১ মাস আগে

ছবি সংগৃহীত

প্রতারণার অভিযোগে করা মামলায় ই-কর্মাস প্রতিষ্ঠান আদিয়ান মার্টের প্রধান নির্বাহীসহ (সিইও) তিনজনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। এ সময় আবু বকর সিদ্দিকী নামে একজনকে জেল গেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দিয়েছেন।

রিমান্ডপ্রাপ্তরা হলেন, আদিয়ান মার্টের সিইও জুবায়ের সিদ্দিক, এমডি মাহমুদ সিদ্দিক ও ব্যবস্থাপক মিনারুল ইসলাম।

মঙ্গলবার (০২ নভেম্বর) দুপুর সোয়া ১টার দিকে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট প্রথম আদালতের বিচারক মানিক দাস এ আদেশ দেন। এর আগে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আসামি পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট তালিম হোসেন।

বাদী পক্ষে শুনানি করেন সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকেট সোহরাব হোসেন ও অ্যাডভোকেট সাজ্জাদ হোসেন রকি। বিবাদী পক্ষে জামিন শুনানিতে অংশ নেন অ্যাডভোকেট তালিম হোসেন, অ্যাডভোকেট আকবর আলী ও অ্যাডভোকেট বদর উদ্দিন।

বিবাদী পক্ষের আইনজীবী বদর উদ্দিন বলেন, আমাদের মক্কেল নির্দোষ। যেহেতু আদালত রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন, তাই আমরা ন্যায় বিচারের স্বার্থে উচ্চ আদালতে যাবো। এর আগে চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় জেলা সদরের বোয়ালমারির উজ্জলের দায়ের করা মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে গত শনিবার আদিয়ান মার্টের সিইও জুবায়ের সিদ্দিক মানিক, পরিচালক মাহমুদ সিদ্দিক রতন ও তাদের বাবা আবু বকর সিদ্দিক এবং ম্যানেজার মিনারুল ইসলামকে আদালতে সোপর্দ করা হয়। একইসাথে সাত দিনের রিমান্ডের আবেদনও করা হয়। আদালত ওইদিনই রিমান্ড শুনানি না করে চারজনকেই জেলহাজতে পাঠানো আদেশ দেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা চুয়াডাঙ্গা সদর থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) গোপাল চন্দ্র মন্ডল জানান, গ্রাহকের টাকা আত্মসাতসহ প্রতারণা মামলায় ই-কর্মাস প্রতিষ্ঠান আদিয়ান মার্টের সিইওসহ গ্রেপ্তার চারজনের সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়। গত ৩০ অক্টোবর করা আবেদনের শুনানি আজ (মঙ্গলবার) হয়। শুনানি শেষে আদালত তিনজনের তিন দিন ও একজনকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের আদেশ দেন।

উল্লেখ্য, ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান আদিয়ান মার্ট চুয়াডাঙ্গা জেলা সদরে মোমিনপুরে ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে তাদের কার্যক্রম শুরু করে। প্রথম থেকেই প্রতিষ্ঠানটি বিভিন্ন অফারের মাধ্যমে জনসাধারণকে আকৃষ্ট করতে থাকে। এরপর সারাদেশ থেকে কোটি কোটি টাকার অর্ডার আসতে থাকে। এক পর্যায়ে প্রতিষ্ঠানটি প্রায় কোটি কোটি টাকার অর্ডার ডেলিভারি বাকি রাখে। কয়েক মাস ধরে তারা প্রতিষ্ঠানের কাস্টমার কেয়ারসহ সব ধরনের কার্যক্রম বন্ধ রেখেছে। এর ফলে দিশেহারা হয়ে পড়েন ডেলিভারি না পাওয়া গ্রাহকরা।

গ্রাহকদের বিভিন্ন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গত ২৯ অক্টোবর রাত ১২টার দিকে আলোচিত ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান আদিয়ান মার্টে অভিযান চালায় র্যা ব। ওইদিন রাতেই গ্রাহকের টাকা আত্মসাৎ মামলায় খুলনা ও চুয়াডাঙ্গা থেকে প্রতিষ্ঠানের সিইওসহ চারজনকে আটক করা হয়।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...