বিএনপি টিকবে কি না, তা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সংশয় প্রকাশ

অনলাইন ডেস্ক;
  • প্রকাশিত: ৮ নভেম্বর ২০২১, ১২:৩৯ অপরাহ্ণ | আপডেট: ৪ সপ্তাহ আগে

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

ভবিষ্যতে বিএনপি একটি রাজনৈতিক দল হিসেবে টিকে থাকবে কি না তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রোববার (০৭ নভেম্বর) স্থানীয় সময় বিকেলে লন্ডনে যুক্তরাজ্য প্রবাসী বাংলাদেশীদের দেওয়া এক সংবর্ধনায় অনুষ্ঠানে (ভার্চুয়াল) এ সংশয় প্রকাশ করেন তিনি।

লন্ডনের কুইন এলিজাবেথ সেন্টারে অনুষ্ঠিত এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী তার সফরকালীন আবাসস্থল হোটেল ক্ল্যারিজ থেকে ভিডিও কনফারেন্সে অংশ নেন।

বিএনপি’র অস্তিত্ব নিয়ে সংশয় প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যে দলের নেতৃত্ব ‘সাজাপ্রাপ্ত আসামী, পলাতক’ সেই দলের ‘অস্তিত্ব’ থাকে কিভাবে?

শেখ হাসিনা বলেন, ‘সেই দলটির (বিএনপি) আজকে অবস্থা কী? আপনারা নিজেরা একটু বিবেচনা করে দেখুন। একটি রাজনৈতিক দলের নেতৃত্বে কে আছে? অস্ত্র স্মাগলিং কেস-এ সাজাপ্রাপ্ত, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা করে আইভী রহমানসহ ২২ জন নেতাকর্মীকে হত্যা করে সেই হত্যার মামলায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী।’

‘এতিমখানায় দেওয়ার জন্য টাকা পেল খালেদা জিয়া সেই টাকা এতিমদের না দিয়ে ভোগ করতে যেয়ে আজকে সেও সাজাপ্রাপ্ত। আর তার ছেলে ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলায় সাজাপ্রাপ্ত, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় সাজাপ্রাপ্ত’—বলেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সাজাপ্রাপ্ত আসামী, পলাতক—সে হলো একটি দলের নেতৃত্বে, তো সেই দলের অস্তিত্ব থাকে কিভাবে। যে দলের নেতৃত্বই হচ্ছে সাজাপ্রাপ্ত আসামী তাও খুনের মামলা, অস্ত্র চোরাকারবারি মামলা থেকে শুরু করে দুর্নীতির মামলা।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘খালেদা জিয়ার ছেলে-পেলেদের দুর্নীতি এটা আমাদের না, এটা আমেরিকার এফবিআই খুঁজে বের করেছে। সেখান থেকে ধরা পড়েছে, সিঙ্গাপুরে ধরা পড়েছে। বাংলাদেশ থেকে পাচারকৃত কিছু টাকা আমরা ফেরত আনতেও সক্ষম হয়েছি। এটাই হলো বাস্তবতা। ওদের মধ্যে দেশপ্রেম নাই। ক্ষমতাকে ভোগের বস্তু মনে করে, লুটপাটের ক্ষেত্র মনে করে।’

বেশ কয়েকটি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত লন্ডনে পালিয়ে থাকা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপার্সন তারেক রহমান ‘প্রবাসে বিলাসী’ জীবন যাপন করছেন মন্তব্য করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আপনারা নিজেরাই এখন দেখতে পারেন। এই প্রবাসে থেকেও কিভাবে তারা জীবন যাপন করে। তাদের সোর্স অব ইনকাম কী? অর্থ কোথায থেকে উপার্জন করে? তারেক জিয়াকে জিজ্ঞেস করেন কোথায় থেকে অর্থ পায়? কিভাবে চলে? জনগণের সম্পদ লুট করে তারা বিলাসিতা করে। আর আওয়ামী লীগ জনগণের পাশে থাকে, জনগণের কল্যাণ চিন্তা করে।’

২০০১ সাল পরবর্তী সময়ে বিএনপি আমলের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘২০০১ এ আসলো খালেদা জিয়া ক্ষমতায়, বাংলাদেশকে পাঁচ পাঁচ বার দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন করল, লুটপাটের রাজত্ব কায়েম করল, হাওয়া ভবন খুলে খাওয়া-খায়ী শুরু করে দিলো, দেশের মানুষের শিক্ষাদীক্ষা সব নষ্ট করে দিলো।’

বিএনপি-জামায়াত আমলে দেশ পিছিয়ে গিয়েছিল জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘মানুষ সামনের দিকে এগোয়, পিছনে চলে যায় তা তো কখনো দেখি নাই। তারা সেটাই দেখাল।’

জনগণের কল্যাণে কাজ করে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করে বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী হিসেবে না, জনগণের সেবক হিসেবে কাজ করবে, আমার বাবার আদর্শ বাস্তবায়ন করব, স্বপ্ন পূরণ করব। দুঃখী মানুষের মুখে হাঁসি ফোটাব।’

আওয়ামী লীগ শাসন আমলে দেশের অগ্রগতির কথা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আজকের বাংলাদেশ নিজের পায়ে দাঁড়াতে শিখেছে। উন্নয়ন কাজের ৯০ শতাংশ আমরা নিজস্ব অর্থায়নে করতে পারি। সেই সক্ষমতা আমরা অর্জন করেছি।’

পদ্মাসেতু ইস্যুতে একটি মহল দুর্নীতির অপবাদ দিতে চেয়েছিল জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘পদ্মাসেতু নিয়ে আমাদের ওপর অপবাদ দিতে চেয়েছিল। আমার ছোট বোন রেহানা এখানে থাকে। খুব সাধারণভাবে চলাচল করে, জীবনযাপন করে, নিজে কাজ করে খায়। তাকেও পর্যন্ত জড়াতে চেয়েছিল। দুর্নীতির অভিযোগ এনেছিল।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি চ্যালেঞ্জ দিয়েছিলাম, বিশ্বব্যাংককে চ্যালেঞ্জ দিয়েছিলাম যে প্রমাণ করতে হবে দুর্নীতি হয়েছে। তারা প্রমাণ করতে পারেনি। কোনো দুর্নীতি হয় নাই।’

তিনি বলেন, ‘আমরা দুর্নীতি করতে আসিনি, আমরা নিজেদের ভাগ্য গড়তে আসিনি, আমরা জনগণের ভাগ্য গড়তে এসেছি, জনগণের ভাগ্য গড়াটাই আমাদের লক্ষ্য, আর সে লক্ষ্য বাস্তবায়ন করার জন্যই আমরা কাজ করছি।’

প্রবাসীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়ে টানা তিনবারের সরকার প্রধান বলেন, ‘অর্থনৈতিক অঞ্চলে যারা বিনিয়োগ করতে চান সেখানে বিনিয়োগের জন্য বিশেষ সুবিধা পাবেন। বিশেষ করে আমাদের প্রবাসী যারা তাদের জন্য আলাদাভাবে বিশেষ সুবিধা আমরা দেবো।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের প্রবাসীদের সমস্যাগুলো সমাধান করার জন্য আমরা সব রকম ব্যবস্থা নিয়েছি। কারো যদি কোনো অসুবিধা হয়, বিনিয়োগে অসুবিধা হয়, আমাকে বলবেন কী কী অসুবিধা হচ্ছে, আমরা সেটা দেখব।’

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান মাহমুদ শরীফ।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...