রোগ থেকে বাঁচতে হলে সচেতনতার কোনো বিকল্প নেই : তাজুল ইসলাম

নিজস্ব প্রতিবেদক;
  • প্রকাশিত: ১৪ নভেম্বর ২০২১, ১১:৩০ পূর্বাহ্ণ | আপডেট: ২ সপ্তাহ আগে

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম

সুউচ্চ ভবন নির্মাণ করতে হলে সেখানে যারা থাকবে তাদের জন্য শিক্ষা, স্বাস্থ্য, খেলার মাঠ এবং বিনোদন কেন্দ্রসহ অন্যান্য নাগরিক সেবা নিশ্চিত করতে হবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

রোববার (১৪ নভেম্বর) রাজধানীর বারডেম হাসপাতাল অডিটরিয়ামে বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতি আয়োজিত ‘বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস’-২০২১ উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ঢাকা শহরে বসবাসরত মানুষের সংখ্যা বিশ্বের যেকোনো শহরের তুলনায় বেশি। যে কারণে রাজধানীবাসীর প্রাপ্য নাগরিক সেবা নিশ্চিত করা সম্ভব হচ্ছে না। সুস্বাস্থ্যের জন্য নিয়মিত শরীরচর্চা করা প্রয়োজন কিন্তু এর জন্য পর্যাপ্ত খেলার মাঠ, পার্ক যা আমাদের নেই। ক্লিনিক-হাসপাতাল, শিক্ষা, বিনোদন কেন্দ্র, খেলার মাঠ সবকিছু আমাদের নিশ্চিত করতে হবে। এ লক্ষ্যে কাজ চলছে।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ড্যাপে উচু ভবন অন্তর্ভূক্ত করতে অনেকেই দাবি তুলছেন। কিন্তু উচু ভবন করে শুধু মানুষ থাকলে হবে না, মানুষকে তো নিচে নামতে হবে। তাদের জন্য রাস্তাঘাট, পার্ক-মাঠ, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, স্বাস্থ্য সেবাসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় সেবা দরকার। আমি ভবন উচু করলাম কিন্তু রাস্তায় যানজট থাকলো। এ উচু ভবন করে যানজট তৈরী করে রাস্তায় বসে থেকে আমাদের ডায়বেটিকস আরো বাড়বে। এটা সবার জন্য ক্ষতি ছাড়া উপকার নেই।

মো. তাজুল ইসলাম আরো বলেন, রাজধানীতে জনসংখ্যার আলোকে মাঠ ও পার্কের কিছুটা সংকট রয়েছে। তবে নতুন ড্যাপে পর্যাপ্ত পার্ক ও মাঠের জন্য জায়গা নিদিষ্ট করা আছে। ড্যাপ বাস্তবায়িত হলে এর সংকট কাটবে। এছাড়া, ঢাকাকে আধুনিক-দৃষ্টিনন্দন ও বাসযোগ্য নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে হলে সবকিছু পরিকল্পিতভাবে গড়ে তুলতে হবে।

ডায়াবেটিসসহ বিভিন্ন রোগ থেকে মুক্ত থাকতে সুস্থ্য-সবল জীবন যাপনের জন্য খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন এবং নিয়মিত শরীরচর্চা করার আহ্বান জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী জানান, আমাদের বেঁচে থাকতে হলে জীবন যাপনের ধরন পরিবর্তন করতে হবে। ফাস্টফুড, কেমিক্যালযুক্ত পানীয়সহ অন্যান্য প্রক্রিয়াজাতকরণ খাদ্য খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। কারণ এগুলোর মধ্যে কার্বহাইড্রেড বেশি থাকে। এজন্য অর্গানিক ফুড খাওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

মন্ত্রী বলেন, মানুষের মাথাপিছু আয় বা সক্ষমতা বৃদ্ধি পাওয়ায় ভোগের পরিমাণ বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে করে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা মোকাবেলা করা চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে না পারলে পরিবেশের পাশাপাশি মানুষের স্বাস্থ্য ঝুঁকি দেখা দিবে। তাই সঠিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় বিশেষ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবসের গুরুত্ব তুলে ধরে তিনি জানান, এ রোগ থেকে বাঁচতে হলে সচেতনতার কোনো বিকল্প নেই। তাই এই রোগ থেকে বাঁচার জন্য কিছু নিয়মকানুন মেনে চলতে হবে।

বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতির সভাপতি ও জাতীয় অধ্যাপক এ কে আজাদ খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বারডেম একাডেমির পরিচালক অধ্যাপক ডা. ফারুক পাঠান।

উল্লেখ্য, বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবসের এবছরের প্রতিপাদ্য ‘ডায়াবেটিস সেবা নিতে আর দেরি নয়’।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...