ট্যাক্সের টাকায় যুদ্ধাপরাধী সাঈদীকে আপ্যায়ন মেনে নেয়া যায় না: প্রতিমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক;
  • প্রকাশিত: ২২ নভেম্বর ২০২১, ১২:৪১ অপরাহ্ণ | আপডেট: ২ সপ্তাহ আগে

তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. মুরাদ হাসান

তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. মুরাদ হাসান বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে মুক্তিপাগল বীর বঙ্গালী মুক্তিযুদ্ধে ঝাপিয়ে পরে স্বাধীনতা ছিনিয়ে আনে। পাকিস্তানী মদদপুষ্ট যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতা চায়নি সেই গোষ্ঠীর অন্যতম সাঈদী ছিল যুদ্ধাপরাধীদের শিরোমনি৷ সাঈদী দেশ, সভ্যতা ও মানুষের জন্য ক্ষতিকর৷

এদেশের মানুষের ট্যাক্সের টাকায় জেলখানায় যুদ্ধাপরাধী দেলোয়ার হোসেন সাঈদীকে আপ্যায়ন করানো মেনে নেয়া যায় না। তাকে যত দ্রুত ফাসির রায় প্রদান পূর্বক কার্যকর করা হোক। সোমবার (২২ নভেম্বর ) রাজধানীর জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউট (নিমকো) এর সভাকক্ষে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন ইনস্টিটিউট আয়োজিত সত্যজিৎ রায়ের জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষ্যে ‘সত্যজিৎ রায়ের চলচ্চিত্রে সামাজিক সচেতনতা’ শীর্ষক সেমিনার ও চলচ্চিত্র প্রদর্শন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

ডা.মুরাদ হাসান বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ দেশ প্রেম দেশের জন্য তার ত্যাগ ভবিষৎ প্রজন্মের কাছে পৌছাতে হবে। ভবিষৎ প্রজন্মের কাছে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস তুলে ধরতে চলচ্চিত্র অন্যতম মাধ্যম। তলা বিহীন ঝুড়ি খ্যাত দেশ আজ বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল হয়েছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দুরদর্শী নেতৃত্ব।

বাংলাদেশ এখন ডিজিটাল বাংলাদেশ। প্রধানমন্ত্রী আমাদের স্বপ্ন দেখিয়েছেন উন্নত সমৃদ্ধশালী দেশের,সেই স্বপ্ন এখন বাস্তবের পথে। সেই সাফল্য গাথাও ভবিষৎ প্রজন্মকে জানাতে হবে। সত্যজিৎ রায় সম্পর্কে প্রতিমন্ত্রী বলেন; সত্যজিৎ রায় এমন একজন নির্মাতা, যার সিনেমা শুধু বাংলা ভাষাভাষি মানুষকেই অনুপ্রাণিত করেনি, শক্তি যুগিয়েছে বিশ্বের সিনেমাপ্রেমী মানুষদেরও। তার জীবন ঘনিষ্ঠ চলচ্চিত্র আজও আমাদের শিহরিত করে।

সত্যজিৎ রায়ের দেখানো পথধরেই চলচ্চিত্র নির্মাণ করতে হবে যে চলচ্চিত্র দেশের কথা সমাজের কথা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কথা বলবে। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য করেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র ও টেলিভশন ইনস্টিটিউট এর প্রধান নির্বাহী মো: আবুল কালাম আজাদ। সেমিনারে পেপার উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ড. নাদিরা জুনাইদ। আরও আলোচনা করেন চলচ্চিত্র নির্মাতা ও শিক্ষক মানজারেহাসীন মুরাদ, শিল্প সমালোচক মইনুদ্দীন খালেদ ও শামীম আখতার- চলচ্চিত্র নির্মাতা ও শিক্ষক।

পরে প্রতিমন্ত্রী জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউট ( নিমকো) আয়োজিত শিশু ও নারী উন্নয়নে সচেতনতামূলক যোগাযোগ কার্যক্রম প্রকল্প(৫ম পর্যায়) এর আওতায় Capacity Bulding of the Community Radio Professionals on Repoting/ Programming on Child Rights Issues in the Contex of COVID-19 শীর্ষক প্রশিক্ষণের সমাপন ও সনদপত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে যোগদেন। অনুষ্ঠান শেষে বিভন্ন জেলা থেকে আগত অংশগ্রহণকারীদের মাঝে সনদ বিতরণ করেন প্রতিমন্ত্রী।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...