ঢাকা ০১:১০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২১ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সাবেক এমপির নামে একাধিক ফেসবুক আইডি খুলে চাঁদাবাজি

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট : ১২:৩৭:৩৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ৮ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • / 138

সামাজিক যোগাযোগ

বরিশাল সদর আসনের সাবেক এমপি জেবুন্নেছা আফরোজের নামে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একাধিক ফেইক আইডি খুলে একটি গ্রুপ চাঁদাবাজি করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

বর্তমানে জেবুন্নে‌ছা বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি পদে থাকিলেও রাজনীতিতে অতটা সক্রিয় নেই। জেবুন্নেছা সাবেক মেয়র শওকত হোসেন হিরনের স্ত্রী।

এ ঘটনায় বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছেন সাবেক এই এমপি। তিনি ইতিমধ্যে ঢাকার গুলশান থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন। থানায় অভিযোগ দেয়ার পর আজ বুধবার জেবুন্নেছা আফরোজ তার ফেসবুক আইডিতে স্ট্যাটাস দিয়েছেন।

স্ট্যাটাসটি তুলে ধরা হলো: বেশ কিছুদিন যাবত কে বা কারা আমার ছবি এবং নাম ব্যবহার করে যেমন জেবুন্নেছা আফরোজ হিরন/জেবু আফরোজ এমপি ইত্যাদি, আরো কিছু নাম দিয়ে আইডি খুলে আমার আত্মীয়স্বজন, নেতা/কর্মী, চেন/অচেনা এমনকি সারা বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে টাকা চাচ্ছে। যা কিনা আমার জন্য অত্যন্ত বিব্রতকর, লজ্জাজনক। শুধু তাই নয় আমি শঙ্কিত কোনোরকম অপকর্ম/সন্ত্রাসমূলক কর্মকাণ্ড ফেক আইডি দ্বারা না ঘটে। ইতিমধ্যে আমি সাইবার ক্রাইমে নোটিশ করে থানায় জিডি করেছি। সাইবার ক্রাইম থেকে তদন্ত কার্যক্রম শুরু করেছে এবং শনাক্তের পর্যায়ে এনেছে। অতএব সবার জ্ঞ্যাতার্থে জানাচ্ছি আমার নিজস্ব আইডি একটাই। এর বহির্ভুত কোনো আইডির কোনো কর্মকাণ্ডের জন্য আমার দায় নেই। যারা এ ধরনের আইডির কিছু অপকর্ম দেখেন বা জানতে পারেন দয়া করে তারা আমাকে আর কখনও বিরক্ত করবেন না আশা করি।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জেবুন্নেছা আফরোজ বলেন, পরিচিত-অপরিচিতদের কাছে ৬শ’ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ২ হাজার টাকা পর্যন্ত চাওয়া হচ্ছে। ২ কোটি টাকা চাইলেও আমার নামের সাথে যেত। বিষয়টি লজ্জাজনক এবং বিব্রতকর। পুলিশের সাইবার ক্রাইম বিভাগ বিষয়টি দেখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। গুলশান থানাও জিডির তদন্ত শুরু করেছে। বিভ্রান্তি অচিরেই দূর হয়ে যবে বলে আশা করেন তিনি।

উল্লেখ্য, জেবুনেচ্ছা আফরোজ বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র ও বরিশাল সদর আসনের সাবেক ‍এমপি প্রায়ত শওকত হোসেন হিরণের স্ত্রী। ২০০৮ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের দ্বিতীয় নির্বাচনে মেয়র নির্বাচিত হন মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি শওকত হোসেন হিরণ। কর্মেগুণে তিনি স্থান করে নেন বরিশালবাসীর অন্তরে।

এরপর ২০১৪ সালে সিটি কর্পোরেশনের তৃতীয় নির্বাচনে আবারও মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন পান হিরণ। কিন্তু তিনি বিএনপি দলীয় প্রার্থীর কাছে পরাজিত হয়ে ওই বছরই সদর আসনে ‍এমপি প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পেয়ে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি ‍নির্বাচিত হন। ‍ওই বছরের ৯ ‍এপ্রিল বরিশালবাসীকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে পাড়ি জমান জননন্দিত মেয়র শওকত হোসেন। এরপর সদর আসনের ‍উপ-নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেয়ে ‍এমপি নির্বাচিত হন প্রয়াত হিরণের স্ত্রী জেবুন্নেচ্ছা আফরোজ।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

সাবেক এমপির নামে একাধিক ফেসবুক আইডি খুলে চাঁদাবাজি

আপডেট : ১২:৩৭:৩৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ৮ সেপ্টেম্বর ২০২১
বরিশাল সদর আসনের সাবেক এমপি জেবুন্নেছা আফরোজের নামে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একাধিক ফেইক আইডি খুলে একটি গ্রুপ চাঁদাবাজি করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

বর্তমানে জেবুন্নে‌ছা বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি পদে থাকিলেও রাজনীতিতে অতটা সক্রিয় নেই। জেবুন্নেছা সাবেক মেয়র শওকত হোসেন হিরনের স্ত্রী।

এ ঘটনায় বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছেন সাবেক এই এমপি। তিনি ইতিমধ্যে ঢাকার গুলশান থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন। থানায় অভিযোগ দেয়ার পর আজ বুধবার জেবুন্নেছা আফরোজ তার ফেসবুক আইডিতে স্ট্যাটাস দিয়েছেন।

স্ট্যাটাসটি তুলে ধরা হলো: বেশ কিছুদিন যাবত কে বা কারা আমার ছবি এবং নাম ব্যবহার করে যেমন জেবুন্নেছা আফরোজ হিরন/জেবু আফরোজ এমপি ইত্যাদি, আরো কিছু নাম দিয়ে আইডি খুলে আমার আত্মীয়স্বজন, নেতা/কর্মী, চেন/অচেনা এমনকি সারা বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে টাকা চাচ্ছে। যা কিনা আমার জন্য অত্যন্ত বিব্রতকর, লজ্জাজনক। শুধু তাই নয় আমি শঙ্কিত কোনোরকম অপকর্ম/সন্ত্রাসমূলক কর্মকাণ্ড ফেক আইডি দ্বারা না ঘটে। ইতিমধ্যে আমি সাইবার ক্রাইমে নোটিশ করে থানায় জিডি করেছি। সাইবার ক্রাইম থেকে তদন্ত কার্যক্রম শুরু করেছে এবং শনাক্তের পর্যায়ে এনেছে। অতএব সবার জ্ঞ্যাতার্থে জানাচ্ছি আমার নিজস্ব আইডি একটাই। এর বহির্ভুত কোনো আইডির কোনো কর্মকাণ্ডের জন্য আমার দায় নেই। যারা এ ধরনের আইডির কিছু অপকর্ম দেখেন বা জানতে পারেন দয়া করে তারা আমাকে আর কখনও বিরক্ত করবেন না আশা করি।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জেবুন্নেছা আফরোজ বলেন, পরিচিত-অপরিচিতদের কাছে ৬শ’ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ২ হাজার টাকা পর্যন্ত চাওয়া হচ্ছে। ২ কোটি টাকা চাইলেও আমার নামের সাথে যেত। বিষয়টি লজ্জাজনক এবং বিব্রতকর। পুলিশের সাইবার ক্রাইম বিভাগ বিষয়টি দেখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। গুলশান থানাও জিডির তদন্ত শুরু করেছে। বিভ্রান্তি অচিরেই দূর হয়ে যবে বলে আশা করেন তিনি।

উল্লেখ্য, জেবুনেচ্ছা আফরোজ বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র ও বরিশাল সদর আসনের সাবেক ‍এমপি প্রায়ত শওকত হোসেন হিরণের স্ত্রী। ২০০৮ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের দ্বিতীয় নির্বাচনে মেয়র নির্বাচিত হন মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি শওকত হোসেন হিরণ। কর্মেগুণে তিনি স্থান করে নেন বরিশালবাসীর অন্তরে।

এরপর ২০১৪ সালে সিটি কর্পোরেশনের তৃতীয় নির্বাচনে আবারও মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন পান হিরণ। কিন্তু তিনি বিএনপি দলীয় প্রার্থীর কাছে পরাজিত হয়ে ওই বছরই সদর আসনে ‍এমপি প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পেয়ে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি ‍নির্বাচিত হন। ‍ওই বছরের ৯ ‍এপ্রিল বরিশালবাসীকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে পাড়ি জমান জননন্দিত মেয়র শওকত হোসেন। এরপর সদর আসনের ‍উপ-নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেয়ে ‍এমপি নির্বাচিত হন প্রয়াত হিরণের স্ত্রী জেবুন্নেচ্ছা আফরোজ।