পুলিশি ‘নির্যাতনে মৃত্যু’র অভিযোগ: তদন্ত কমিটি গঠন

অনলাইন ডেস্ক;
  • প্রকাশিত: ৩ নভেম্বর ২০২১, ১১:১৪ পূর্বাহ্ণ | আপডেট: ৪ সপ্তাহ আগে

ছবি সংগৃহীত

রংপুরের হারাগাছে পুলিশের ‘নির্যাতনে’ তাজুল ইসলাম (৫৫) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যুর অভিযোগের ঘটনায় চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে আগামী ৭ দিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

আজ বুধবার এ বিষয়ে পুলিশের এক প্রতিবেদন আদালতে উপস্থাপনের পর বিচারপতি মামনুন রহমান ও বিচারপতি খোন্দকার দিলিরুজ্জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

হারাগাছের ঘটনায় গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন গতকাল মঙ্গলবার হাইকোর্টের নজরে আনেন ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া। এরপর ঘটনার বিষয়ে কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে, তা জানতে চান আদালত।

সে আদেশের প্রেক্ষিতে বুধবার হাইকোর্টের বিচারপতি মামনুন রহমান ও বিচারপতি খোন্দকার দিলিরুজ্জামানের বেঞ্চে জমা দেওয়া প্রতিবেদনে কমিটি গঠনের কথা জানায় পুলিশ। এরপর শুনানি শেষে আদালত এ আদেশ দেন।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত দাশ গুপ্ত এ তথ্য জানিয়েছেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মৃত্যুর ঘটনায় মরদেহের সুরতহাল রিপোর্টে আঘাতের চিহ্ন নেই। ওই ব্যক্তির কাছে ৫ গ্রাম হেরোইন পাওয়া গিয়েছিল। ঘটনা তদন্তে ৪ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে সাত দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়েছে।

সোমবার (১ নভেম্বর) সন্ধ্যায় রংপুরের হারাগাছ এলাকায় পুলিশের অভিযানের পর হারাগাছ পৌর এলাকার দালালহাট নয়াটারী গ্রামের বাসিন্দা তাজুল ইসলামের মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় পুলিশের বিরুদ্ধে তাজুলকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ তুলে থানা ঘেরাও করে স্থানীয়রা। এতে স্থানীয়দের সঙ্গে দফায় দফায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয় পুলিশের। বিক্ষুব্ধরা এ সময় বেশ কিছু গাড়ি ভাঙচুর করে, সড়ক অবরোধেরও চেষ্টা করে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে পুলিশ। এদিন প্রায় তিন ঘণ্টা পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে পুলিশ।

ঘটনার বিষয়ে হারাগাছ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শওকত আলী বলেন, তাজুল হেরোইন সেবন করছিলেন- এমন খবর পেয়ে সেখানে অভিযানে যায় পুলিশ। তাকে আটকের পর হ্যান্ডকাপ পরানো হলে তিনি মলত্যাগ করে ফেলেন।

ওসির ভাষ্য, এ ঘটনার পর পুলিশ তাজুলকে স্থানীয়দের জিম্মায় দিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। এর কিছুক্ষণ পর খবর আসে তাজুল মারা গেছেন।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...