ঢাকা ০৮:২৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কানাডায় স্কুলের জায়গায় ২১৫ শিশুর দেহাবশেষ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট : ০৩:১২:২২ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৯ মে ২০২১
  • / 202
::আন্তর্জাতিক ডেস্ক::

কানাডায় একটি সাবেক আদিবাসী স্কুলের জায়গায় বিশাল গণকবরের সন্ধান পাওয়া গেছে। গার্ডিয়ান ও বিবিসির প্রতিবেদনে এই তথ্য পাওয়া গেছে।

এ ঘটনা ঘটেছে বৃটিশ কলাম্বিয়ার কামলুপস ইন্ডিয়ান রেসিডেন্সিয়াল স্কুলে। এই স্কুলটি ১৮৯০ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল রোমান ক্যাথলিক চার্চের নেতৃত্বের অধীনে। কিন্তু স্কুলটি বন্ধ হয়ে যায় ১৯৭৮ সালে।

স্থানীয় একজন কর্মকর্তা বলেছেন, যাদের মৃতদেহ সেখানে পাওয়া গেছে তাদের বয়স ৩ বছরের মতো। কিন্তু কি কারণে এবং কখন তারা মারা গিয়েছিল তা এখনও স্পষ্ট নয়।

স্কুলটির জায়গায় গণকবর পাওয়ার তথ্য প্রথমবার প্রকাশ্যে আসে গত বৃহস্পতিবার। কানাডীয় প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো এটিকে ‘দেশের ইতিহাসের একটি লজ্জাজনক অধ্যায়’ বলে মন্তব্য করেছেন।

একটি টিম ‘গ্রাউন্ড-পেনিট্রেটিং রাডার’ বা ভূপৃষ্ঠের নিচে কি আছে তা পরীক্ষা করার একটি রাডারের সাহায্যে এই গণকবরটি আবিষ্কার করা হয়।

থেমলুপস তি সেকউইপেমক-এর প্রধান রোজানে কাসিমির বলেছেন, এই অজ্ঞাত শিশুদের মৃত্যুর বিষয়ে জানা যায়নি। তারা কারা সে বিষয়ে নিশ্চিত নই। এসব মৃত্যু নিয়ে এই মুহূর্তে আমাদের কাছে শুধু প্রশ্ন আছে। কিন্তু উত্তর নেই। কানাডায় ওই সময় আদিবাসী শিশুদেরকে তাদের বাড়ি ও সম্প্রদায়ের কাছ থেকে জোরপূর্বক এসব স্কুলে নেয়া হতো। তাদেরকে তাদের নিজস্ব ভাষায় কথা বলতে এবং নিজেদের সাংস্কৃতিক চর্চা থেকে বিরত রাখা হতো।

এসব প্রতিষ্ঠানে শারীরিক, মানসিক এবং যৌন নির্যাতন হতো খুব বেশি। একই সঙ্গে চলতো জোরপূর্বক শ্রমে নিয়োজিত করা।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

কানাডায় স্কুলের জায়গায় ২১৫ শিশুর দেহাবশেষ

আপডেট : ০৩:১২:২২ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৯ মে ২০২১
::আন্তর্জাতিক ডেস্ক::

কানাডায় একটি সাবেক আদিবাসী স্কুলের জায়গায় বিশাল গণকবরের সন্ধান পাওয়া গেছে। গার্ডিয়ান ও বিবিসির প্রতিবেদনে এই তথ্য পাওয়া গেছে।

এ ঘটনা ঘটেছে বৃটিশ কলাম্বিয়ার কামলুপস ইন্ডিয়ান রেসিডেন্সিয়াল স্কুলে। এই স্কুলটি ১৮৯০ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল রোমান ক্যাথলিক চার্চের নেতৃত্বের অধীনে। কিন্তু স্কুলটি বন্ধ হয়ে যায় ১৯৭৮ সালে।

স্থানীয় একজন কর্মকর্তা বলেছেন, যাদের মৃতদেহ সেখানে পাওয়া গেছে তাদের বয়স ৩ বছরের মতো। কিন্তু কি কারণে এবং কখন তারা মারা গিয়েছিল তা এখনও স্পষ্ট নয়।

স্কুলটির জায়গায় গণকবর পাওয়ার তথ্য প্রথমবার প্রকাশ্যে আসে গত বৃহস্পতিবার। কানাডীয় প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো এটিকে ‘দেশের ইতিহাসের একটি লজ্জাজনক অধ্যায়’ বলে মন্তব্য করেছেন।

একটি টিম ‘গ্রাউন্ড-পেনিট্রেটিং রাডার’ বা ভূপৃষ্ঠের নিচে কি আছে তা পরীক্ষা করার একটি রাডারের সাহায্যে এই গণকবরটি আবিষ্কার করা হয়।

থেমলুপস তি সেকউইপেমক-এর প্রধান রোজানে কাসিমির বলেছেন, এই অজ্ঞাত শিশুদের মৃত্যুর বিষয়ে জানা যায়নি। তারা কারা সে বিষয়ে নিশ্চিত নই। এসব মৃত্যু নিয়ে এই মুহূর্তে আমাদের কাছে শুধু প্রশ্ন আছে। কিন্তু উত্তর নেই। কানাডায় ওই সময় আদিবাসী শিশুদেরকে তাদের বাড়ি ও সম্প্রদায়ের কাছ থেকে জোরপূর্বক এসব স্কুলে নেয়া হতো। তাদেরকে তাদের নিজস্ব ভাষায় কথা বলতে এবং নিজেদের সাংস্কৃতিক চর্চা থেকে বিরত রাখা হতো।

এসব প্রতিষ্ঠানে শারীরিক, মানসিক এবং যৌন নির্যাতন হতো খুব বেশি। একই সঙ্গে চলতো জোরপূর্বক শ্রমে নিয়োজিত করা।