ঢাকারবিবার , ২৩ জানুয়ারী ২০২২

মুসলিম হওয়ায় মন্ত্রিত্ব হারিয়েছিলেন নুসরাত ঘানি

যুগের কন্ঠ
জানুয়ারী ২৩, ২০২২ ১:৩৪ অপরাহ্ন
Link Copied!

সাবেক ব্রিটিশ মন্ত্রী নুসরাত ঘানি এবার ধর্মীয় গোঁড়ামির অভিযোগ তুললেন দেশটির সমালোচিত প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের বিপক্ষে।

সানডে টাইমসের এক খবরে জানা যায়, সাবেক জুনিয়র পরিবহন মন্ত্রী নুসরাত ঘানি তার মন্ত্রীত্ব হারিয়েছিলেন শুধুমাত্র মুসলিম হওয়ার কারণে। তার মুসলিম বিশ্বাস সহকর্মীদের অস্বস্তিকর করে তুলছিলো বলেই নাকি তাকে বরখাস্ত করা হয়েছিলো প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের রক্ষণশীল সরকারের মন্ত্রী পদ থেকে। এমনটিই অভিযোগ ব্রিটেনের প্রথম এই মুসলিম মহিলা মন্ত্রীর।

৩৯ বছর বয়সী নুসরাত ঘানি বলেন, ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে জুনিয়র পরিবহন মন্ত্রী হিসাবে তার চাকরি হারিয়েছিলেন তার মুসলিমতাবাদী আদর্শের জন্য।

তিনি আরও বলেন, ঐ সময় ডাউনিং স্ট্রিটে রদবদলের বৈঠকে মুসলিমতা একটি ইস্যু হিসাবে গণ্য হয়েছিল। সরকারের একজন হুইপ তাকে জানিয়েছিলেন যে তার মুসলিমতা একটি সমস্যা হিসাবে উত্থাপিত হয়েছিল বৈঠকে। তার মুসলিম মহিলা মন্ত্রী পদমর্যাদা নাকি সহকর্মীদের জন্য অস্বস্তিকর পরিবেশ গড়ে তুলছিলো।

এদিকে প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের কার্যালয় থেকে তার মন্তব্যের তাৎক্ষনিক কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। তবে সরকারের চিফ হুইপ মার্ক স্পেন্সার বলেছেন যে তিনিই ঘানির অভিযোগের কেন্দ্রে ছিলেন।

তিনি বলেন, এই অভিযোগগুলি সম্পূর্ণ মিথ্যা এবং আমি সেগুলোকে মানহানিকর বলে মনে করি। আমি কখনই এই ধরণের কিছু তাকে বলিনি।

এছাড়াও স্পেন্সার আরও জানান, গত মার্চে প্রথম যখন বিষয়টি উত্থাপন করা হয়েছিলো, তখন নুসরাত ঘানি বিষয়টিকে আনুষ্ঠানিকভাবে অভ্যন্তরীণ তদন্তকার্যে রাখতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিলেন।

সূত্র: আল-জাজিরা

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।