ঢাকা ০৮:৫৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রহস্যময় জ্বরে ভারতে ৫০ মৃত্যু, অধিকাংশই শিশু

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট : ১২:৪৮:৪৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ১ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • / 140

ভারতের উত্তর প্রদেশ রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় রহস্যময় জ্বরে এক সপ্তাহে অন্তত ৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে, যাদের অধিকাংশই শিশু। কয়েকশ’ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বুধবার বিবিসি এ খবর জানায়।

এ জ্বরে আক্রান্তরা বলছেন, তাদের গায়ে প্রচণ্ড ব্যাথা থাকছে, মাথা ধরাও আছে। সেইসঙ্গে রয়েছে পানিশূন্যতা ও বমি বমি ভাব। কিছু কিছু রোগীর হাতে ও পায়ে রেশ উঠতে দেখা গেছে। এসব রোগীদের কোভিড পরীক্ষা করা হলেও ফলাফল নেগেটিভ এসেছে।

কোভিড আক্রান্ত হননি, তাহলে এ রোগের নাম কি? এ ধরনের একটি প্রশ্ন এখন স্থানীয় চিকিৎসকদের মনে। তারা এখনও শনাক্ত করতে পারেননি ভয়াবহ এ জ্বরটির আসল সরূপ।

ব্রিটিশ গণমাধ্যমটির প্রতিবেদনে বলা হয়, উত্তর প্রদেশের পূর্বাঞ্চলের ছয়টি জেলায় রহস্যময় এ জ্বরের প্রকোপ দেখা দিয়েছে। এ জেলাগুলো হলো – আগ্রা, মথুরা, মাইনপুর, ইতাহ, কাশগঞ্জ ও ফিরোজাবাদ।

কিছু চিকিৎসকরা মনে করেন, মশার কামড় থেকে ছড়ানো ভাইরাসঘটিত রোগ ডেঙ্গু হতে পারে। তাদের ধারণা, এটা ডেঙ্গুর একটি মারাত্মক ধরন।

এ রোগে আক্রান্তদের রক্তে প্লেটিলেটের হার কমে যায়। সম্ভবত এ কারণেই হয়তো এমনটা ধারণা করা হচ্ছে। তবে এ সম্পর্কে এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

রহস্যময় জ্বরে ভারতে ৫০ মৃত্যু, অধিকাংশই শিশু

আপডেট : ১২:৪৮:৪৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ১ সেপ্টেম্বর ২০২১

ভারতের উত্তর প্রদেশ রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় রহস্যময় জ্বরে এক সপ্তাহে অন্তত ৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে, যাদের অধিকাংশই শিশু। কয়েকশ’ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বুধবার বিবিসি এ খবর জানায়।

এ জ্বরে আক্রান্তরা বলছেন, তাদের গায়ে প্রচণ্ড ব্যাথা থাকছে, মাথা ধরাও আছে। সেইসঙ্গে রয়েছে পানিশূন্যতা ও বমি বমি ভাব। কিছু কিছু রোগীর হাতে ও পায়ে রেশ উঠতে দেখা গেছে। এসব রোগীদের কোভিড পরীক্ষা করা হলেও ফলাফল নেগেটিভ এসেছে।

কোভিড আক্রান্ত হননি, তাহলে এ রোগের নাম কি? এ ধরনের একটি প্রশ্ন এখন স্থানীয় চিকিৎসকদের মনে। তারা এখনও শনাক্ত করতে পারেননি ভয়াবহ এ জ্বরটির আসল সরূপ।

ব্রিটিশ গণমাধ্যমটির প্রতিবেদনে বলা হয়, উত্তর প্রদেশের পূর্বাঞ্চলের ছয়টি জেলায় রহস্যময় এ জ্বরের প্রকোপ দেখা দিয়েছে। এ জেলাগুলো হলো – আগ্রা, মথুরা, মাইনপুর, ইতাহ, কাশগঞ্জ ও ফিরোজাবাদ।

কিছু চিকিৎসকরা মনে করেন, মশার কামড় থেকে ছড়ানো ভাইরাসঘটিত রোগ ডেঙ্গু হতে পারে। তাদের ধারণা, এটা ডেঙ্গুর একটি মারাত্মক ধরন।

এ রোগে আক্রান্তদের রক্তে প্লেটিলেটের হার কমে যায়। সম্ভবত এ কারণেই হয়তো এমনটা ধারণা করা হচ্ছে। তবে এ সম্পর্কে এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।