ঢাকা ০১:৪২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নির্যাতনের এক মাস পর নতুন হলে উঠলেন ফুলপরী

অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেট : ০৬:০৫:০৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ১২ মার্চ ২০২৩
  • / 114
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) দেশরত্ন শেখ হাসিনা হলে এক মাস আগে ছাত্রলীগ নেত্রীদের নির্যাতনের শিকার ফুলপরী খাতুন হল পরিবর্তন করে নতুন হলে উঠেছেন। রোববার দুপুর ১২টার দিকে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে বাবার সঙ্গে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলে আসে ফুলপরী। এই হলেই আজ থেকে তার নামে বরাদ্দ হওয়া আসনে থাকবেন তিনি।

গত ৫ মার্চ ফিন্যান্স বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্রী ফুলপরীকে হাইকোর্টের নির্দেশে তার পছন্দমতো বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলে আসন বরাদ্দ দেয় প্রশাসন। তিনি দেশরত্ন শেখ হাসিনা হলে সংযুক্ত ছিলেন।

ফুলপরী খাতুন বলেন, ‘গত ৭ ফেব্রুয়ারি প্রথম আমি এই ক্যাম্পাসে এসেছিলাম। সে সময় যেমন ভালো লেগেছিল, আজও তেমন ভালো লাগছে। হলের থাকার জন্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র সঙ্গে করে নিয়ে এসেছি।’

এর আগে ১২ ফেব্রুয়ারি রাতে দেশরত্ন শেখ হাসিনা হলের গণরুমে সাড়ে চার ঘণ্টা আটকে রেখে নির্যাতন করার অভিযোগ করেন ফিন্যান্স বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্রী ফুলপরী খাতুন। নির্যাতনের সময় তাকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ, গালিগালাজ ও ঘটনা কাউকে জানালে মেরে ফেলার হুমকিও দেয়া হয়। পরে এ বিষয়ে ফুলপরী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর, হলের প্রাধ্যক্ষ ও ছাত্র উপদেষ্টার কাছে লিখিত অভিযোগ দেন।

ফুলপরীকে নির্যাতনের ঘটনায় কয়েক দফা তদন্তের পর ৪ মার্চ ছাত্রলীগের অভিযুক্ত পাঁচ নেতা-কর্মীকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়। তারা হলেন পরিসংখ্যান বিভাগের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী সানজিদা চৌধুরী অন্তরা, চারুকলা বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী হালিমা আক্তার ঊর্মি , আইন বিভাগের একই শিক্ষাবর্ষের ইসরাত জাহান মিম, ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের তাবাসসুম ইসলাম ও একই বিভাগের একই সেশনের মুয়াবিয়া জাহান।

এর মধ্যে সানজিদা চৌধুরী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি ছিলেন। অন্যরা ছাত্রলীগের কর্মী। নির্যাতনের ঘটনায় এই পাঁচজনকে ১ মার্চ সংগঠন থেকে বহিষ্কার করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

নির্যাতনের এক মাস পর নতুন হলে উঠলেন ফুলপরী

আপডেট : ০৬:০৫:০৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ১২ মার্চ ২০২৩
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) দেশরত্ন শেখ হাসিনা হলে এক মাস আগে ছাত্রলীগ নেত্রীদের নির্যাতনের শিকার ফুলপরী খাতুন হল পরিবর্তন করে নতুন হলে উঠেছেন। রোববার দুপুর ১২টার দিকে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে বাবার সঙ্গে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলে আসে ফুলপরী। এই হলেই আজ থেকে তার নামে বরাদ্দ হওয়া আসনে থাকবেন তিনি।

গত ৫ মার্চ ফিন্যান্স বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্রী ফুলপরীকে হাইকোর্টের নির্দেশে তার পছন্দমতো বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলে আসন বরাদ্দ দেয় প্রশাসন। তিনি দেশরত্ন শেখ হাসিনা হলে সংযুক্ত ছিলেন।

ফুলপরী খাতুন বলেন, ‘গত ৭ ফেব্রুয়ারি প্রথম আমি এই ক্যাম্পাসে এসেছিলাম। সে সময় যেমন ভালো লেগেছিল, আজও তেমন ভালো লাগছে। হলের থাকার জন্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র সঙ্গে করে নিয়ে এসেছি।’

এর আগে ১২ ফেব্রুয়ারি রাতে দেশরত্ন শেখ হাসিনা হলের গণরুমে সাড়ে চার ঘণ্টা আটকে রেখে নির্যাতন করার অভিযোগ করেন ফিন্যান্স বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্রী ফুলপরী খাতুন। নির্যাতনের সময় তাকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ, গালিগালাজ ও ঘটনা কাউকে জানালে মেরে ফেলার হুমকিও দেয়া হয়। পরে এ বিষয়ে ফুলপরী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর, হলের প্রাধ্যক্ষ ও ছাত্র উপদেষ্টার কাছে লিখিত অভিযোগ দেন।

ফুলপরীকে নির্যাতনের ঘটনায় কয়েক দফা তদন্তের পর ৪ মার্চ ছাত্রলীগের অভিযুক্ত পাঁচ নেতা-কর্মীকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়। তারা হলেন পরিসংখ্যান বিভাগের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী সানজিদা চৌধুরী অন্তরা, চারুকলা বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী হালিমা আক্তার ঊর্মি , আইন বিভাগের একই শিক্ষাবর্ষের ইসরাত জাহান মিম, ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের তাবাসসুম ইসলাম ও একই বিভাগের একই সেশনের মুয়াবিয়া জাহান।

এর মধ্যে সানজিদা চৌধুরী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি ছিলেন। অন্যরা ছাত্রলীগের কর্মী। নির্যাতনের ঘটনায় এই পাঁচজনকে ১ মার্চ সংগঠন থেকে বহিষ্কার করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ।