ঢাকা ০৪:৫৫ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সচিবের মায়ের সেবায় ২৪ কর্মকর্তা-কর্মচারী, যা বললেন মন্ত্রী

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট : ০২:৩২:৫২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৪ অগাস্ট ২০২১
  • / 132
::নিজস্ব প্রতিবেদক::

করোনা আক্রান্ত হয়ে জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের করোনা ইউনিটে ভর্তি আছেন মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব রওনক মাহমুদের মা। আর তার সেবায় নিয়োজিত আছেন এক উপসচিবসহ ২৪ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী। তাদের লিখিত নির্দেশনা দিয়ে তিন দিনের জন্য চার শিফটে দায়িত্ব ভাগ করে দেয়া হয়েছে।

সোমবার দেশের বেসরকারি একটি টেলিভিশনের এক প্রতিবেদনে উঠে আসে এ তথ্য। এরপরই এ নিয়ে চারদিকে শোরগোল শুরু হয়। মঙ্গলবার সচিবালয়ে এ বিষয়ে কথা বলেছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ. ম. রেজাউল করিম।

তিনি বলেন, সচিবের করোনায় আক্রান্ত মাকে সহানুভূতি ও আবেগের জায়গা থেকে দেখতে গেছেন কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। আর তার মায়ের চিকিৎসা সংক্রান্ত ইস্যুতে মন্ত্রণালয় থেকে কোনো চিঠি ইস্যু করা হয়নি।

মন্ত্রী আরো বলেন, সচিব আমাকে বলেছেন, যে তাঁর মাকে ক্রিটিক্যাল অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছে। ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হওয়ার কারণে তিনিও শারীরিকভাবে দুরবস্থায় আছেন। এ অবস্থায় মন্ত্রণালয়ের বেশ কিছু কর্মকর্তা তাঁর মাকে সহানুভূতি জানাতে গেছেন। এ ক্ষেত্রে উপচে পড়া ভিড় হওয়ার কারণে তাঁরা নিজেরা পর্যায়ক্রমে হাসপাতালে গেছেন সহানুভূতি জানাতে।

কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারীকে ডিউটি ভাগ করে দেওয়া হয়েছে কিনা জানতে চাইলে রেজাউল করিম বলেন, আমি সচিবের কাছে জানতে চেয়েছি যে কোনো কর্মকর্তাকে বাই রোটেশন (পর্যায়ক্রমে) ডিউটি করতে বলা হয়েছে কি না? তিনি বলেছেন, এটা সম্পূর্ণরূপে অসত্য। বাই রোটেশন তো দূরের কথা, অফিশিয়ালি কাউকে কিছু বলা হয়নি।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

সচিবের মায়ের সেবায় ২৪ কর্মকর্তা-কর্মচারী, যা বললেন মন্ত্রী

আপডেট : ০২:৩২:৫২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৪ অগাস্ট ২০২১
::নিজস্ব প্রতিবেদক::

করোনা আক্রান্ত হয়ে জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের করোনা ইউনিটে ভর্তি আছেন মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব রওনক মাহমুদের মা। আর তার সেবায় নিয়োজিত আছেন এক উপসচিবসহ ২৪ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী। তাদের লিখিত নির্দেশনা দিয়ে তিন দিনের জন্য চার শিফটে দায়িত্ব ভাগ করে দেয়া হয়েছে।

সোমবার দেশের বেসরকারি একটি টেলিভিশনের এক প্রতিবেদনে উঠে আসে এ তথ্য। এরপরই এ নিয়ে চারদিকে শোরগোল শুরু হয়। মঙ্গলবার সচিবালয়ে এ বিষয়ে কথা বলেছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ. ম. রেজাউল করিম।

তিনি বলেন, সচিবের করোনায় আক্রান্ত মাকে সহানুভূতি ও আবেগের জায়গা থেকে দেখতে গেছেন কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। আর তার মায়ের চিকিৎসা সংক্রান্ত ইস্যুতে মন্ত্রণালয় থেকে কোনো চিঠি ইস্যু করা হয়নি।

মন্ত্রী আরো বলেন, সচিব আমাকে বলেছেন, যে তাঁর মাকে ক্রিটিক্যাল অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছে। ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হওয়ার কারণে তিনিও শারীরিকভাবে দুরবস্থায় আছেন। এ অবস্থায় মন্ত্রণালয়ের বেশ কিছু কর্মকর্তা তাঁর মাকে সহানুভূতি জানাতে গেছেন। এ ক্ষেত্রে উপচে পড়া ভিড় হওয়ার কারণে তাঁরা নিজেরা পর্যায়ক্রমে হাসপাতালে গেছেন সহানুভূতি জানাতে।

কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারীকে ডিউটি ভাগ করে দেওয়া হয়েছে কিনা জানতে চাইলে রেজাউল করিম বলেন, আমি সচিবের কাছে জানতে চেয়েছি যে কোনো কর্মকর্তাকে বাই রোটেশন (পর্যায়ক্রমে) ডিউটি করতে বলা হয়েছে কি না? তিনি বলেছেন, এটা সম্পূর্ণরূপে অসত্য। বাই রোটেশন তো দূরের কথা, অফিশিয়ালি কাউকে কিছু বলা হয়নি।