ঢাকা ০১:৪৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২১ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিশ্বকাপ ফাইনালে গোল বিতর্ক, মুখ খুললেন রেফারি

ক্রীড়া ডেস্ক
  • আপডেট : ০৪:৫৪:৩১ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ ডিসেম্বর ২০২২
  • / 27
দীর্ঘ ৩৬ বছরের অপেক্ষার অবসান। অবশেষে বিশ্বকাপ জিতেছে আর্জেন্টিনা। কাতারে তৃতীয় খেতাব আর্জেন্টিনার। ফাইনালে টাইব্রেকারে ফ্রান্সকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন আলবিসেলেস্তেরা।

বিশ্বকাপ শেষ, দেশে ফিরেছেন ফুটবলাররা, বিতর্ক থামেনি। কাতার বিশ্বকাপে শুরু থেকেই নানা বিতর্ক ছিল। শেষটাও হয়েছে বিতর্কে।

বিশ্বকাপ ফাইনালে গোল গণ্ড ‘গোল’! ফরাসি সংবাদমাধ্যমে নানা প্রশ্ন তোলা হয়েছিল। এ বার প্রমাণ সহ মুখ খুললেন ফাইনালের পোলিশ রেফারি সাইমন মারচিনিয়াক।

ফরাসি সংবাদমাধ্যম লেকুইপের প্রথম পাতায় প্রশ্ন তোলা হয়েছিল, অতিরিক্ত সময়ে মেসির গোলটা কেন বাতিল করা হবে না! সে সময়, আর্জেন্টিনার দুই পরিবর্ত ফুটবল মাঠে ঢুকছিলেন। তাদের আরও দাবি, আর্জেন্টিনাকে গোল না দিয়ে ফ্রান্সকে ফ্রি-কিক দেওয়া উচিত ছিল।

পাল্টা দিলেন ফাইনালের রেফারি। সাংবাদিক সম্মেলনে মোবাইলে প্রমাণ দেখালেন! অনেকে আবার দাবি তোলেন, এমবাপের দ্বিতীয় পেনাল্টির সময় উপমেনাকোর হ্যান্ড বল হয়। সেই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছিল। যদিও সেই মুভ থেকেই মন্টিয়েলের হ্যান্ড-বল এবং ফ্রান্সকে পেনাল্টি দেওয়া হয়।

সাংবাদিক সম্মেলনে মোবাইল দেখিয়ে রেফারি সাইমন বলেন, ফরাসিরা এই ছবিটা নিয়ে কোনও কথা বলছে না। এখানে পরিষ্কার দেখা যাচ্ছে, এমবাপের গোলের সময় সাতজন পরিবর্ত ফুটবল মাঠে ছিলেন। ফাইনাল শেষ হলেও, বিতর্কের রেশ যেন থামছেই না।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

বিশ্বকাপ ফাইনালে গোল বিতর্ক, মুখ খুললেন রেফারি

আপডেট : ০৪:৫৪:৩১ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ ডিসেম্বর ২০২২
দীর্ঘ ৩৬ বছরের অপেক্ষার অবসান। অবশেষে বিশ্বকাপ জিতেছে আর্জেন্টিনা। কাতারে তৃতীয় খেতাব আর্জেন্টিনার। ফাইনালে টাইব্রেকারে ফ্রান্সকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন আলবিসেলেস্তেরা।

বিশ্বকাপ শেষ, দেশে ফিরেছেন ফুটবলাররা, বিতর্ক থামেনি। কাতার বিশ্বকাপে শুরু থেকেই নানা বিতর্ক ছিল। শেষটাও হয়েছে বিতর্কে।

বিশ্বকাপ ফাইনালে গোল গণ্ড ‘গোল’! ফরাসি সংবাদমাধ্যমে নানা প্রশ্ন তোলা হয়েছিল। এ বার প্রমাণ সহ মুখ খুললেন ফাইনালের পোলিশ রেফারি সাইমন মারচিনিয়াক।

ফরাসি সংবাদমাধ্যম লেকুইপের প্রথম পাতায় প্রশ্ন তোলা হয়েছিল, অতিরিক্ত সময়ে মেসির গোলটা কেন বাতিল করা হবে না! সে সময়, আর্জেন্টিনার দুই পরিবর্ত ফুটবল মাঠে ঢুকছিলেন। তাদের আরও দাবি, আর্জেন্টিনাকে গোল না দিয়ে ফ্রান্সকে ফ্রি-কিক দেওয়া উচিত ছিল।

পাল্টা দিলেন ফাইনালের রেফারি। সাংবাদিক সম্মেলনে মোবাইলে প্রমাণ দেখালেন! অনেকে আবার দাবি তোলেন, এমবাপের দ্বিতীয় পেনাল্টির সময় উপমেনাকোর হ্যান্ড বল হয়। সেই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছিল। যদিও সেই মুভ থেকেই মন্টিয়েলের হ্যান্ড-বল এবং ফ্রান্সকে পেনাল্টি দেওয়া হয়।

সাংবাদিক সম্মেলনে মোবাইল দেখিয়ে রেফারি সাইমন বলেন, ফরাসিরা এই ছবিটা নিয়ে কোনও কথা বলছে না। এখানে পরিষ্কার দেখা যাচ্ছে, এমবাপের গোলের সময় সাতজন পরিবর্ত ফুটবল মাঠে ছিলেন। ফাইনাল শেষ হলেও, বিতর্কের রেশ যেন থামছেই না।