দ্বিতীয় দিনেও অনশনে শিক্ষার্থীরা, ‘প্রমাণ মিলেছে’ চুল কাটার  

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি;
  • প্রকাশিত: ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১:৫৮ অপরাহ্ণ | আপডেট: ৩ সপ্তাহ আগে
ফারহানা ইয়াসমিন (বামে), শিক্ষার্থীদের অনশন (ডানে)

সিরাজগঞ্জের রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৪ শিক্ষার্থীর চুল কেটে দেয়ার অভিযোগে সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বাংলাদেশ অধ্যয়ন বিভাগের চেয়ারম্যান ফারহানা ইয়াসমিনকে স্থায়ীভাবে অপসারণের দাবিতে আমরণ অনশন করছে শিক্ষার্থীরা।

বৃহস্পতিবার টানা দ্বিতীয় দিনের মত অনশন চালিয়ে যাচ্ছেন একদল শিক্ষার্থী। এ দিন দুপুর পর্যন্ত অনশনরত অবস্থায় চার শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়ে।

আহত শিক্ষার্থীরা হলেন- সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বাংলাদেশ অধ্যয়ন বিভাগের হাবিব, জাহিদ, সিরাত ও জাকারিয়া। হাবিব ও জাকারিয়াকে শাহজাদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

এর আগে গতকাল বুধবার সকাল থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের অস্থায়ী ক্যাম্পাসের সামনে অবস্থান নিয়ে অনশন শুরু করে শিক্ষার্থীরা। এ সময় তারা শিক্ষক ফারহানাকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কারের দাবি জানান।

এছাড়া আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে শাহজাদপুর পৌর এলাকার কান্দাপাড়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনে তালা ঝুলিয়ে দেয় শিক্ষার্থীরা। প্রশাসনিক ভবনের দুটি সিসিটিভি ক্যামেরাও ভাঙচুর করে তারা।

ঘটনার পর রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালনা বোর্ডের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ফারহানা ইয়াসমিন সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বাংলাদেশ অধ্যয়ন বিভাগের চেয়ারম্যান, সহকারী প্রক্টর ও সিন্ডিকেট সদস্যপদ থেকে লিখিতভাবে পদত্যাগ করেছেন।

এদিকে চুল কেটে দেয়ার অভিযোগটি তদন্তে রবীন্দ্র অধ্যয়ন বিভাগের চেয়ারম্যান লায়লা ফেরদৌসকে প্রধান করে গত মঙ্গলবার পাঁচ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। সিসিটিভির ভিডিও দেখে শিক্ষার্থীদের চুল কেটে দেয়ার প্রমাণ পাওয়ার কথা জানিয়েছে তদন্ত কমিটি।

তদন্ত কমিটি সূত্রে জানা গেছে, ঘটনাস্থলের সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজে কাঁচি হাতে শিক্ষার্থীদের চুল কাটার সত্যতা পাওয়া গেছে। তদন্ত কমিটির সদস্যরা মিলে একাধিক বৈঠকও করেছে। প্রতিবেদন জমা দেয়ার পর গণমাধ্যমকর্মীদের এসব বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হবে।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...